প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডেঙ্গু প্রতিরোধে ইসলাম

এস এম আরিফুল কাদের : বর্তমানে মহামারির আকার ধারণ করছে ডেঙ্গু। প্রবাদে আছে,‘রোগ প্রতিরোধ রোগ নিরাময় থেকে শ্রেয়।’ আর তাই ডেঙ্গু হওয়ার পূর্বে ইসলামি নিয়মে প্রতিরোধের মাধ্যমে নিজেকে নিম্নোক্ত পদ্ধতিতে রক্ষা করা যায়।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা : বিশেষজ্ঞ দ্বারা স্বীকৃত যে, ডেঙ্গুবাহিত এডিস মশা পরিষ্কার এবং ঠাণ্ডা পানিতে জন্ম ও বংশ বিস্তার করে। তাই বাসা-বাড়িতে বা আশেপাশে পরিত্যক্ত কৌটা, ডাবের খোসা, ফুলের টব, বালতি, ফ্রিজ ও এসির নিচের জমে থাকা পানি অন্তত সাতদিন পরপর পরিষ্কার করা উচিৎ। আর এভাবেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে প্রায় দেড় হাজার বৎসর পূর্বে মহানবী (স) হাদিস শরিফে ইরশাদ করেছেন- হযরত আবু মালেক আশআরি (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুল (স) ইরশাদ করেছেন, ‘পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অংশ।’ (সহিহ মুসলিম)

তওবা-ইস্তিগফার করা : হাদিসের ভাষায়, ‘যখন কোনো জাতির মধ্যে প্রকাশ্যে নির্লজ্জতা বা অশ্লীলতা বিস্তার লাভ করে, তখন তাদের মধ্যে এমন সব সংক্রামক মহামারি ও যন্ত্রণাদায়ক রোগ দেখা দেয় যা তাদের আগের যুগে ছিল না।’ (সুনান ইবনে মাজাহ) আর এ আজাব থেকে বাঁচতে প্রয়োজন খালেসভাবে তওবা ইস্তিগফার করে মহান প্রভুর ইবাদত বন্দেগিতে মনোনিবেশ করা।

দোয়া করা : হাদিসে এসেছে, ‘রাসূল (স) ইরশাদ করেন, আল্লাহর নিকট ক্ষমা, স্বাস্থ্য ও সুস্থতার জন্য দোয়া করো। নিশ্চয়ই ঈমান আনার পর স্বাস্থ্যের চেয়ে আর কোনো অর্জন মানুষের নিকট উত্তম নয়।’ (সহিহ তিরমিজি ও নাসাঈ) আর হাদিসে দোয়ার নিয়ম বিশ্বনবী (স) শিখিয়েছেন।

রাসূলুল্লাহ (স) বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রত্যহ সকাল এবং সন্ধ্যায় নিম্নোক্ত দোয়াটি পড়বে; তাকে কোনো বিপদাপদ, বালা-মুসিবত স্পর্শ করবে না, পূর্বের প্রবেশকৃত রোগ ব্যতীত শরীরে কোনো রোগ প্রবেশ করবে না। দোয়াটি হলো এই:‘বিসমিল্লাহিল লাজি লা ইয়াদূররু মাআস মিহি শাইয়ুন ফিল আরদি ওয়ালা ফিস সামায়ি ওয়াহুয়াস সামিউল আলীম।’ (সহিহ তিরমিজি, ইবনে মাজাহ, মিশকাত)।

লেখক : আলেম ও গবেষক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত