প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দিনব্যাপী জল্পনার পর সিনেম্যাটিক কায়দায় গ্রেফতার ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী চিদাম্বরম

আসিফুজ্জামান পৃথিল, লিহান লিমা : ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী ও কংগ্রেসের জেষ্ঠ্য নেতা পি. চিদাম্বরমকে গ্রেফতার করা হবে, বুধবার সারাদিন ধরে এই কথা শোনা যাচ্ছিলো। রাতে সব কল্পনার অবসান ঘটিয়ে গ্রেফতার হলেন, চিদাম্বরম। তার বাড়িতে যৌথভাবে সিনেমাটিক কায়দায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছে সিবিআই ও ইডি। ইয়ন নিউজ, এনডিটিভি

২৭ ঘন্টা ধরে প্রকাশ্যে দেখা যায়নি চিদাম্বরমকে। তিনি আইনজীবির মাধ্যমে আগাম জামিন আবেদন করলে তা বাতিলও হয়ে যায়। পরে তার বাড়িতে অভিযান চালায় ইনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। তবে তাকে না পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিশ জারি করা হয়। এরপরে তাকে ২৭ ঘন্টা পর দেখা যায়। জানা যায় তিনি বাড়িতে প্রবেশ করেছেন। এরপর তার অভিযান চালায় ইডি ও সিবিআই। বাড়িতে দরজা না খোলায় দেওয়াল টপকে বাড়িতে ঢোকেন তাঁরা। এর পরেও নাটকীয় পরিস্থিতি তৈরি হয়। শেষ পর্যন্ত রাত পৌনে দশটা নাগাদ তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।
দলের এই জ্যেষ্ঠ নেতার বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিশ জারির পর তার পক্ষ নিয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে কংগ্রেস। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি এই ঘটনায় কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ করে বিষয়টিকে ‘ক্ষমতার অপব্যবহার’ হিসাবে অভিহিত করেছেন। ওদিকে তাঁর বোন প্রিয়াংকা গান্ধি বলেছেন, সাবেক মন্ত্রী ‘লজ্জাজনকভাবে রাজনৈতিক প্রতিহিংসতার শিকার ।’

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ২০০৭ সালে অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন ছেলে কার্তির অনুরোধে আইএনএক্স মিডিয়া সংস্থাকে বিদেশি বিনিয়োগের বরাত পাওয়ার অনুমতি দেন চিদাম্বরম। জানা গেছে, ওই মিডিয়া সংস্থাকে বিদেশি বিনিয়োগ পেতে সরকারি ছাড়পত্র দেওয়ার নাম করে বিরাট অঙ্কের ঘুষও নেন চিদাম্বরমের ছেলে কার্তি চিদাম্বরম। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করে পি চিদাম্বরম বিষয়টিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে উল্লেখ করেন।

এটিকে কৌশলী অর্থ পাচারের একটি মামলা হিসাবে অভিহিত করে বিচারপতি সুনীল গৌর বলেন, ‘এই ধরণের বড় মাপের অর্থনৈতিক অপরাধ চূড়ান্তভাবে পরিকল্পনা করেই করা হয়েছে। এই মামলায় আগাম জামিনের আবেদন মঞ্জুর করা হলে সমাজের কাছে একটি ভুল বার্তা যাবে।’ মঙ্গলবার সুপ্রিমকোর্টে ভারতের তদন্ত সংস্থা সিবিআই বলেছে, আর্থিক কেলেঙ্কারির ক্ষেত্রে এটি একটি অসামান্য দিক। বিষয়টি প্রধানবিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আদালতের বিচারপতি সুনীল গৌর বলেছেন, এই মামলার মূল ষড়যন্ত্রকারী হলেন পি চিদাম্বরমই, তাই তাঁর আগাম জামিনের আবেদন নাকচ করে দেওয়া হলো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত