প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ব্রেক্সিট চুক্তি থেকে ‘ব্যাকস্টপ’ বাদ দিতে মের্কেল ও ম্যাক্রোঁকে বোঝাবেন বরিস

লিহান লিমা: ব্রেক্সিট রক্ষায় নিজের প্রথম বিদেশ সফরে জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেলের সঙ্গে দেখা করতে বার্লিন যাচ্ছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ইউরোপ সফরের এই সূচীতে স্থানীয় সময় বুধবার বার্লিনে মের্কেলের সঙ্গে দেখা করবেন বরিস, বৃহস্পতিবার আলোচনা করবেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গে। সিএনবিসি, দ্য গার্ডিয়ান

দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় বরিস ব্রেক্সিট চুক্তিতে ইউরোপের বাকি নেতাদের বোঝাতে মের্কেল ও ম্যাক্রোঁকে প্রভাবিত করার চেষ্টা চালাবেন তিনি। বরিস আশা করছেন, উত্তর আয়ারল্যান্ড সীমান্তের সঙ্গে ইইউভুক্ত আয়ারল্যান্ডের সীমান্ত নিয়ে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র করা ‘ব্যাকস্টপ’ ধারাটি বাদ দেয়ার বিষয়টি বিবেচনা করবে ইইউ।

সিএনবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রেক্সিট চুক্তি থেকে ‘ব্যাকস্টপ’ ধারা বাদ দিলে এটি ৩১ অক্টোবর ইইউ থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়ার সময়সীমার পূর্বেই এটি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে অনুমোদিত হবে। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, জনসনের এই সফরে মের্কেল বা ইইউ থেকে বড় কোন পরিবর্তনের আশা করা ঠিক হবে না। কারন ইইউ বারবার স্পষ্ট করেছে, তারা ‘ব্যাকস্টপ’ ইস্যুতে পুনরায় কোন সমঝোতা করবে না।

সোমবার ইউরোপিয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ককে লেখা চিঠিতে বরিস বলেছেন, ব্যাকস্টপ ‘গণতন্ত্র-বিরোধী’। ব্রেক্সিট চুক্তি থেকে ব্যাকস্টপ ধারাটি বাদ দিলেই একটি ভালো চুক্তি ও বিকল্প সমাধান সম্ভব। তবে চিঠির উত্তরে টাস্ক বলেছেন, এর কোন বিকল্প চুক্তি বরিস পেশ করতে পারবেন না। যদি ব্রিটেন ও ইইউ ২১ মাসের অন্তবর্তীকালীন সময়ের মধ্যে কোন বাণিজ্য চুক্তিতে না আসে তবেই ব্যাকস্টপ কার্যকর হবে। ব্রেক্সিট-পন্থী ব্রিটিশ এমপিরা বলছেন, এটি ব্রিটেনকে খুব কাছ থেকে ইইউ’র বাণিজ্য নীতির সঙ্গে যুক্ত রাখবে এবং দেশটিকে অন্য দেশের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি করা থেকে বিরত রাখবে। পূর্বে এই ব্যাকস্টপ ইস্যুতে তিনবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট চুক্তি প্রত্যাখ্যাত হয়, যা কোন চুক্তি ছাড়াই ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পথ তৈরি করছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত