প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাকার দুই সিটিতে নতুন প্রার্থী খুঁজছে আওয়ামী লীগ

আহমেদ শাহেদ : ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এরই মধ্যে দলটির শীর্ষ কয়েক নেতা প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য মাঠ জরিপ শুরু করেছেন। দলের জন্য নিবেদিত, নিজ এলাকায় সামাজিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত ও জনপ্রিয়- এমন নেতা খুঁজছেন তারা। যুগান্তর

সূত্র মতে, ওয়ার্ড জরিপে বর্তমান কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরদের অধিকাংশের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তৃণমূল নেতাকর্মী ও স্থানীয় বাসিন্দাদের। সে হিসেবে আসন্ন ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অনেক কাউন্সিলর বাদ পড়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। মেয়র পদেও খোঁজা হচ্ছে অধিকতর যোগ্য প্রার্থী।

২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল প্রথমবারের মতো ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর দুই মেয়র ওই বছর ৬ মে শপথ গ্রহণ করেন। সে অনুযায়ী আগামী বছরের মে মাসে মেয়াদ শেষ হবে মেয়রদের। স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন অনুযায়ী, পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার ১৮০ দিন আগে ভোট করতে হবে।

সে হিসেবে আগামী বছরের জানুয়ারির দিকে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন উত্তর ও দক্ষিণের নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা আছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান রোববার বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বাছাইয়ের জরিপ শুরু করেছে। কে কোথায় জনপ্রিয়, দলের জন্য নিবেদিত, তা খতিয়ে দেখছি। দায়িত্ব পালনে যারা যোগ্য ও সবার থেকে এগিয়ে থাকবে তারাই মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পাবে। কাউন্সিলরদের বিষয়েও জরিপ চলছে। তাদের দলীয় প্রতীক দেয়া হবে কিনা তা এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। সেক্ষেত্রেও আমরা জনপ্রিয় দলীয় নেতাকেই সমর্থন দেব।

ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে সবাইকে পরামর্শ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। শনিবার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, কয়েক মাস পর ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। জোর করে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে শেখ হাসিনা নির্বাচনে জিততে চান না। আমরা জনগণকে খুশি করে জনগণের রায় মেনে নির্বাচিত হতে চাই।

ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনারা কেউ যদি ভাবেন ক্ষমতায় আছি জিতেই যাব, তাহলে ভুল করবেন। আপনাকে জনগণের মন জয় করে, জনগণের ভোটেই নির্বাচিত হতে হবে। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আমাদের বিজয়ী হতে হবে।
প্রার্থী বাছাইয়ে জরিপ কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা জানান, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলরদের গত চার বছর চার মাসে সফলতার হিসাব কষলে অনেকের পাস নম্বরও জুটবে না। জনপ্রতিনিধি হওয়ার পর অনেকে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে ন্যূনতম সম্পর্কটুকুও রাখেননি। ঢাকার যেসব ওয়ার্ডে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে মারামারি হচ্ছে তার মূল কারণ কাউন্সিলরদের আধিপত্য। অনেক কাউন্সিলরের কাছে দলের স্থানীয় সিনিয়র নেতারা অবমূল্যায়িত ও অবহেলিত হয়েছেন। আমরা সেসব বিষয় মাথায় রেখে জরিপ করছি। সেসব ওয়ার্ডে নতুন প্রার্থীর সন্ধান করছি।

এরই মধ্যে বিএনপিও সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে অংশগ্রহণের ঘোষণা দিয়েছে। নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে, এই বিবেচনা মাথায় রেখেই শক্তিশালী প্রার্থী চূড়ান্তে কাজ করছে ক্ষমতাসীনরা।

সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত