প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খালেদার মুক্তি আন্দোলনে নেতাদের অনীহা!

তৌহিদ এলাহী দীপ্ত : ধৈর্য আর কৌশলের দোহাই দিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন আটকে রাখা হয়েছে বলে মনে করেন দলের বেশিরভাগ নেতা। তারা বলছেন, সাংগঠনিক দুর্বলতা ও শীর্ষ নেতাদের সদিচ্ছার অভাবেই ১৮ মাসেও জোরালো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি তাদের দল। ডিবিসি

বিএনপির একাধিক নেতা মনে করেন যেকোন আন্দোলনের জন্যই দল তৈরি রয়েছে। অপেক্ষা শুধু উপযুক্ত সময়ের। তবে, আন্দোলন নিয়ে কৌশলের কথা বলে সময় ক্ষেপণ করার অভিযোগও করেছেন কেউ কেউ।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবদিন ফারুক বলেন, আন্দোলনের জন্য ধৈর্য ধরার জন্য বলার একটা যুক্তি আছে। যুক্তিটি হলো, বিএনপি দুই-একজন নেতা বা কর্মীর দল না, অনেক বড় জনগোষ্ঠীর সমর্থকের দল। তাই সবাইকে একত্র করেই আন্দোলনে নামতে হবে।

তবে এর বিরোধীতা করে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, আমাদের দলের চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী খালেদা জিয়া কারাগারে থাকবে, আর আন্দোলনের জন্য ধৈর্য ধরে বসে থাকবেন এটাতো হতে পারে না। যারা ধৈর্য ধরার তারা বসেই থাকুক। আমরা আইনজীবীরা মাঠে নামছি, মাঠেই থাকবো।

দুর্নীতির মামলায় সাজা পেয়ে ১৮ মাস ধরে কারাগারে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। তাকে মুক্ত করতে আইনি লড়াইয়ের পাশাপাশি রাজপথেও প্রতীকী অনশন, অবস্থান, মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি। এবার জোরালো আন্দোলনের সময় এসেছে বলে মনে করেন নেতারা।

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর (অব) হাফিজউদ্দিন আহমেদ বলেন, বিএনপির পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এখন মানববন্ধন, অনশন ছেড়ে অবরোধ, হরতালের মত কর্মসূচি দেয়া উচিত। আর এসব কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হলে ছাত্রদল, যুবদলকেও সক্রিয় হতে হবে।

আর মাঠের আন্দোলনকে যারা বেগবান করেন সেই নেতারা বলছেন, সাংগঠনিক দৃঢ়তা না থাকলে রাজপথেও কঠোর ও কার্যকর আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব নয়।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল বলেন, কঠোর আন্দোলন করতে হলে কঠোর সংগঠন দরকার। আমাদের সংগঠনেরই যেহেতু সরকারের দমন পীড়নে নাজুক অবস্থা, ওটা মজবুত না করে কঠোর আন্দোলনের ফল পাওয়া সম্ভব না। তাই আমরা সংগঠনকে শক্তিশালী করেই মাঠে নামার চেষ্টা করছি।

দলের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, সাংগঠনিক দুর্বলতা কাটিয়ে দলকে আন্দোলনমুখী করার কাজ চলছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল মাহমুদ টুকু বলেন, এখন আমাদের এমন আন্দোলন করতে হবে যে আন্দোলন থেকে ফিরে আসা যাবে না। কর্মীরা উত্তেজনার বশে অনেক কিছুই করতে চায়। কিন্তু আমরা এমন একটা আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছি যেখান থেকে সফল না হওয়া পর্যন্ত আর ফিরে আসবো না। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত