প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে ঈদের পরে রাজধানীতে ফিরছে মানুষ

শাহীন খন্দকার : পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঈদুল আজহা উদযাপনে যান্ত্রিক নগরী ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে যাওয়া মানুষগুলো রোজগারের টানে আবারও রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেছেন। বাস, ট্রেন, লঞ্চে যে যেভাবে পারছেন ফিরছেন তারা। ঈদের ছুটি শেষ হওয়ায় মঙ্গলবার থেকেই ফেরার এ যাত্রা শুরু হয়েছে। তবে ঢাকায় ফেরা মানুষের চাপ এখনো তুলনামূলকভাবে কম। গতবুধবার ঈদের তৃতীয় দিনেও ছিল ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়।
ঈদের ছুটি শেষে বুধবার থেকে অফিস খুলেছে। তবে গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে আবারও টানা তিন দিন ছুটি শুরু হয়েছে। এ কারণে অনেকেই গতকাল বুধবার ছুটি নিয়ে নিয়েছেন। ফলে তারা পরিবারের সঙ্গে গ্রামের বাড়িতে আরেকটু বেশি সময় থাকার সুযোগ পাচ্ছেন।
পরিবারের সঙ্গে বাড়তি সময় থাকার এ সুযোগ নিয়েছেন বড় একটা অংশই। যে কারণে ছুটি শেষ হলেও ফেরার চাপ এখনো শুরু হয়নি। মঙ্গলবারের ন্যায় গতকাল বুধবারও ফিরতি বাস-লঞ্চ ট্রেনে যাত্রীদের চাপ ছিল না। অবশ্য বাড়তি ছুটি থাকার পরও কেউ কেউ বিড়ম্বনা এড়াতে আগেভাগেই ঢাকায় ফিরছেন।
এদিকে, ঢাকার বিভিন্ন বাস স্টেশনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দূরপাল্লার বাসগুলো ঢাকা ছাড়ার পথে যাত্রীদের ভিড়ে হিমশিম খেলেও ফেরার পথে তেমনটি হচ্ছে না। কারণ ঈদের ছুটিতে যারা গ্রামে ফিরেছেন তারা এখনো ফিরতে শুরু করেননি। যদিও দু-একটি দূরপাল্লার বাস আসছে তাতে যাত্রী সংখ্যা তুলনামূলক কম।
গত বুধবার ছিল ঈদের তৃতীয় দিন। রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ছিল ঈদের আগের সেই চীরচেনা দৃশ্য। হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষা করছেন গন্তব্যে যাওয়ার জন্য। কিন্তু ট্রেনের দেখা নেই। ঢাকা থেকে রাজশাহীর উদ্দেশে সকাল ৬টায় ছেড়ে যাওয়ার কথা আন্তঃনগর ধুমকেতু এক্সপ্রেস। পরে ঢাকা থেকে প্রায় এক ঘণ্টারও বেশি সময় পর ছেড়ে যায়। একই অবস্থা ঢাকা থেকে খুলনাগামী আন্তঃনগর ট্রেন সুন্দরবন এক্সপ্রেসেরও।
কমলাপুর থেকে সকাল ৬টা ২০ মিনিটে ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও প্রায় দেড় ঘণ্টা দেরিতে ছেড়ে যায় ট্রেনটি।
ঈদে ঘরমুখো মানুষের বাড়ি ফেরা নিয়ে নানা ভোগান্তি ছিল। শিডিউল বিপর্যয়ের কারণে ট্রেন পরের দিনও ছেড়ে গেছে। কিন্তু ঈদের আগের সেই শিডিউল বিপর্যয় ঈদের পরেও থাকবে এমনটি মানতে পারছেন না যাত্রীরা। ঈদের সময় মানুষের বাড়ি যাওয়ার তাড়া থাকে। আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে ঢাকা ছাড়ে মানুষ। এ কারণে ঈদের সময় সাধারণত শিডিউল বিপর্যয় দেখা দেয়, ভোগান্তিতে পড়তে হয় যাত্রীদের। তাই অনেকে আছেন সেই ভোগান্তি থেকে বাঁচতে ঈদের পরে বাড়ি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। ঈদের তৃতীয় দিন তারাই এসেছেন কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে। কিন্তু ঈদের পরও সেই পুরোনো দৃশ্য ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়।
কমলাপুর স্টেশনের স্টেশন ম্যানেজার মোহম্মদ আমিনুল হক বলেন, গতকাল কমলাপুর স্টেশন থেকে ৩৪টি আন্তঃনগর ও তিনটি স্পেশাল ট্রেন ছেড়ে গেছে। তবে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলগামী দু-একটি ট্রেন বাদে অধিকাংশ ট্রেনই শিডিউল অনুযায়ী ছেড়ে গেছে। তিনি বলেন, গতকালও দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে যাওয়া যাত্রীদের ছিল উপচেপড়া ভিড়। তবে ভিড় থাকলেও যাত্রীদের ভোগান্তি নিয়ে কারো কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়া যায়নি।
ছুটির আমেজে ঢাকায়
ঈদুল আজহার তিন দিনের ছুটি কাটিয়ে নগরবাসীর অনেকেই গ্রামে থেকে ফিরলেও এখনো ঢাকায় বিরাজ করছে ছুটির আমেজ। আগের দুই দিনের মতো গতকাল নগরীর বিভিন্ন রাস্তাঘাট ছিল প্রায় জনশূন্য। অধিকাংশ মার্কেট ও বিপণিবিতান ছিল বন্ধ। যানবাহনের সংখ্যাও কম। গতকাল থেকে সরকারি অফিস-আদালত খুললেও তেমন উপস্থিতি ছিল না। সকাল থেকে থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে রাস্তায় যাত্রীর সংখ্যাও ছিল একেবারেই শূন্যের কোঠায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত