প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের শোক র‌্যালি ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলন

সমীরণ রায়: বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা, শোক র‌্যালি ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করেছে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট।

বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের শিল্পীরা শোক র‌্যালি নিয়ে বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে প্রদীপ প্রজ্জ্বলনে অংশ নেন। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সহ সভাপতি স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কন্ঠশিল্পী রফিকুল আলম। বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ সভাপতি অভিনেত্রী অরুনা বিশ্বাস, অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী, সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অভিনেত্রী তারিন জাহান, অভিনেত্রী তানভিন সুইটি, চিত্রনায়িকা শাহানুর, রীতা রাণী সরকার, আওয়ামী লীগ নেতা ও নাট্যকার মোত্তাছিম বিল্লাহ, হাবিবুল্লাহ রিপন, যুবলীগ নেতা আওলাদ হোসেন রুহুল, অধ্যক্ষ আহসান সিদ্দিকী, উদয় শংকর বসাক, সুজন মৃধা প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর রক্তের ঋণ বাঙালি জাতি কখনো শোধ করতে পারবে না। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পেছনে একটাই উদ্দেশ্য ছিল, এদেশকে পাকিস্তানের অঙ্গরাজ্য বানানো। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা নয়, এটি রাষ্ট্র ও সংবিধানকে হত্যা করা। জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে যোগদান করেছিলেন। জিয়াউর রহমানই পর্দার অন্তরালে থেকে বঙ্গবন্ধু হত্যায় নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি, যারা বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে নেতৃত্ব দেয়া জিয়াউর রহমান, খন্দকার মোস্তাকসহ যারা জড়িত ছিলেন, তাদেরও মরণোত্তর বিচার করতে হবে।’

তারা বলেন, খালেদা জিয়াও পাকিস্তানিদের খুশি করতে ১৫ আগস্টে তার ভুয়া জন্মদিন পালন করে আসছিলেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসেছেন বলেই বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছিল, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। বিদেশে যে সমস্ত বঙ্গবন্ধুর খুনিরা পলাতক রয়েছেন, তাদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের রায় কার্যকর করতে হবে। আজ দেশে আবার গভীর ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে।

সবাইকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থেকে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে কাজ করারও আহ্বান জানান বক্তারা।
সম্পাদনা: অশোকেশ রায়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত