প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১০ কারণে বেড়াতে গেলে ঘর ডাকে

সাজিয়া আক্তার : ছুটি পেলেই বেড়াতে যান অনেকে। একঘেয়েমি ও ক্লান্তিকর জীবন থেকে পালিয়ে দূরে কোথাও গেলেই যেন মুক্তি। নতুন জায়গা, পাহাড়, সমুদ্র, নতুন নতুন খাবার, হোটেলের আরামদায়ক পরিবেশ নিয়ে মেতে থাকি সবাই। কিন্তু কয়েকদিন যেতেই ঘরে ফেরার জন্য মন কেমন করতে থাকে। অনেকেই ভাবতে থাকি, অনেক তো ঘোরাঘুরি হলো, এখন ফিরতে হবে। প্রাণের ধর্মই হয়তো এমন। মনে হয় নিজের ঘরের চাইতে আরামের জায়গা আর কোথাও নাই। বাড়ি ফিরে আসার এই টানটা এমন যেন- ‘তোমায় নতুন করে পাবো বলে, হারাই ক্ষণে ক্ষণে। সারাবাংলা

দিনশেষে সবাই চায় ‘আপন ঘরে’ ফিরতে। বলা হয়, পাখির আছে নীড়, মানুষের আছে ঘর। তাইতো, স্বস্তি পেতে নিজের ঘরের চেয়ে উপযুক্ত জায়গা আর নেই। কেন এই ঘরে ফিরে আসার টান। ছুটি থেকে ঘরে ফেরার জন্য অনুঘটক হিসেবে কাজ করে ঘরের নানা উপাদান ও বৈশিষ্ট্য। আসুন দেখে নেই ঘরে ফিরতে চাওয়ার এমন দশ কারণ।

১ নিজস্ব কাপে দিনের প্রথম চা বা কফি

প্রিয় কাপে এক কাপ গরম চা কিংবা কফি ছাড়া যেন সকালই শুরু হয় না অনেকের। বাইরে ঘুরতে গেলে চা-কফি খাওয়ার সুযোগ হয় না তা নয়। তবে ঘুম ভেঙেই প্রিয় কাপে এক কাপ চা দূর করবে ভ্রমণের সব ক্লান্তি, এনে দেবে অন্যরকম উষ্ণতা। পরিবারের সবাইর সঙ্গে উপভোগ করা এক কাপ চা কিংবা কফিও তাই ঘরে ফেরার আকুতি জানায়।

২ নিজের ঘর আর বিছানা

মানুষের সবচেয়ে আরামের জায়গা তার নিজের ঘর আর বিছানা। নিজের বিছানা আর বালিশের চেয়ে উষ্ণ বোধহয় আর কিছু নাই। অনেকেই আবার নিজের বিছানা ছাড়া ঠিকমতো ঘুমাতে পারেন না। এই অভ্যাস যাদের আছে, তারা ভ্রমণে গেলে একটু অসুবিধাতেই পড়েন। বাসায় ফিরেই তবে স্বস্তি মেলে তাদের।

মনে রাখা ভালো, অপরিচ্ছন্ন ঘরে ঘুমানো ঠিক না। বাসায় ফিরে তাই বিছানার চাদর বদলে, ঘরের ময়লা ভালো করে পরিষ্কার করুন। এতে মনে শান্তির অনুভূতি আসবে।

৩ ঘরের উষ্ণতা

বেড়াতে গেলে যতই সুন্দর জায়গায় যাই না কেন, যত মজার খাবারই খাই না কেন একটা পর্যায়ে নিজের বাসার সবকিছুই মিস করতে থাকি আমরা। মনে হয় নিজের বাসার চাইতে আরামের জায়গা আর নাই। বাসায় বানানো সকালের রুটি-সবজি বা দুপুরের ডাল-ভাতেই যেন জীবনের সব উষ্ণতা মিশে আছে বলে মনে হতে থাকে বাইরে কোথাও ঘুরতে গেলে।

ঘরে ফিরে আসা তাই মন ও শরীরকে তাজা করে তার নিজ্বস আরামের অনুভূতি নিয়ে।

৪ ফিরে আসা পুরনো ছকে

ঘুরতে গেলে মজার মজার খাবার, রুটিন ছাড়া জীবনযাপনও একঘেয়ে লাগতে পারে। কিছুটা অস্বাস্থ্যকরও বটে। প্রতিদিনের রুটিনে ফেরা কিছুটা কঠিনই লাগতে পারে। তবে ফিরে এসেই স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধারের আয়োজন শুরু করা যেতে পারে। রুটিনমাফিক, খাওয়া, ঘুম আর ব্যয়ামেই ফিরে পাবেন আপনার কাজের পুরনো ছন্দ।

ভ্রমণের ক্লান্তি নিয়ে ‘ছুটির দিন’ শুরু হলেও কেবল শুয়ে বসে কাটানো যাবে না। বাসার কাজ, বাজার করা, ঠিক সময়ে খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপাটি খেয়াল রাখতে হবে। এছাড়া ভালো বই পড়ে কিংবা গান শুনেও বেশ আনন্দেই সময় কাটানো যায়।

৫ আর নয় লাগেজময় জীবন

বেড়াতে গেলে কাপড় থেকে শুরু করে চিরুনি পর্যন্ত স্যুটকেস থেকে বের করে নিতে হয়। এটা অনেকসময় বিরক্তিকর মনে হতে পারে। বাড়ি মানেই পরা যায় যেকোন পোশাক বা জুতো। ঘরে ফিরে আলমারিতে সাজানো ভাঁজ করা কাপড় তাই দিতে পারে আরামের অনুভূতি।

৬ নিকটজনের কাছে ফেরা

পরিবারের সঙ্গে ছুটি কাটাতে গেলেও আরও অনেকের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাই আমরা। আর বন্ধুদের সঙ্গে গেলে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাই। তাই ছুটি শেষে ফিরে আসা মানেই ফিরে আসা নিজস্ব চ্ছন্দে। ঘনিষ্ঠজনের সঙ্গে গল্প আর আড্ডাবাজির মধ্যেও যেন লুকিয়ে থাকে আনন্দের উৎস।

৭ দেখতে পারেন পছন্দের অনুষ্ঠান

আজকাল কাজের চাপেই হোক কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রভাবেই হোক, টিভি দেখার ইচ্ছা অনেকেরই থাকে না। তবে অনেকেই টিভিতে ধারাবাহিক অনুষ্ঠান দেখে থাকেন। তাদের জন্য ঘরে ফিরে টিভিতে মিস যাওয়া পর্বগুলো দেখার তাড়া থাকে।

৮ আপন জগতের টান

নিজের মগ, গ্লাস, প্লেট, কাঁথা কিংবা চটিও যে আমাদের কত আপন তা বোঝা যায় দূরে কোথাও ঘুরতে গেলে। বাসার প্রিয় সোফা, চেয়ার কিংবা বারান্দার কোনে বসার জন্যও মন কেমন করতে থাকে আমাদের। আপন জগতের টানেও ঘরে ফিরে আসতে ব্যকুল হই আমরা।

৯ নিজের হাতে রান্না

বাইরে যতই মজার খাবার খান না কেন ঘরে ফিরে নিজের হাতে রান্নাঘরে টুকটাক রান্না করা খাবারের স্বাদই আলাদা। ছুটি থেকে ফিরে পরিবারের সদস্যদের জন্য রান্না করা অন্যরকম পরিতৃপ্তি এনে দেয়।

১০ পরবর্তী ভ্রমণের পরিকল্পনা করতে

ভ্রমণপ্রিয় আপনাকে পরের ঘোরাঘুরির পরিকল্পনা করতে ঘরেই ফিরে আসতে হবে। নিজের বাসায় মনের মতো কয়েকটা দিন কাটিয়ে বেরিয়ে পড়ুন পরের গন্তব্যের উদ্দেশ্যে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত