প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সামিল ছাত্রলীগ

মুহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন: অধিভুক্ত সাত কলেজ সংকটের স্থায়ী সমাধান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার পরিবেশ নির্বিঘ্ন তথা ক্লাস-পরীক্ষা সচল রাখার দাবিতে কর্মসূচিতে ঢাবি অধিভুক্ত ইডেন মহিলা কলেজ, তিতুমীর কলেজ ও সোহরাওয়ারর্দী কলেজের শিক্ষার্থীরাও অংশ নিয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাবির অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে ছাত্রলীগের সমাবেশ চলছে। সমাবেশে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। তবে, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও তার অনুসারীদের কর্মসূচিতে অংশ নিতে দেখা যায়নি।

সমাবেশ শেষে ছাত্রলীগ নেতারা উপাচার্যের কার্যালয়ে স্মারকলিপি দিতে যান। উপাচার্য দেশে না থাকায় উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদের কাছে স্মারকলিপি প্রদান  করেন।

ছাত্রলীগের নেত্রীরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের অধিভুক্তি সংকট সমাধানের এ কর্মসূচিতে অংশ নেন।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের এ কর্মসূচিতে ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তামান্না জাহান রাইভা, জান্নাতারা জান্নাত, ইফরাত জাহান ইতি, পাপিয়া রায়, সদস্য নুজহাত ফারিয়া রোকসানা, নাহিদা চৌধুরী রাকা, ফারিয়া মল্লিক, আফরোজা রোশনী, আনিসা আলমসহ ৫০ জনের মতো নেত্রী অংশ নেন।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও সম্ভব হয়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের(ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুর বলেন,‘ছাত্রলীগ ২৩ জুলাই, মঙ্গলবার ডাকসুর সমাজ সেবা সম্পাদকের উপর হামলা এবং গেইটের তালা ভাঙার মাধ্যমে ঘৃণ্য আচরণ করেছে। তারা মেয়ে শিক্ষার্থীদের সাথেও বাজে আচরণ করেছে। আমার সাথেও অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ছাত্রলীগ অসৌজন্যমূলক আচরণ  করেছে। আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের সাথে যৌক্তিক আলোচনা না করে তারা অধিভুক্তি কলেজের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ক্যাম্পাসে এসে আন্দোলন করেছে।’ ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় না বসে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কেন এবিষয়ে কর্মসূচি করছে প্রশ্ন নুরের।

তিনি বলেন,‘ছাত্রলীগ ডাকসু’কে অকার্যকর করতেই শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ না করে তাদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেছে। তারা ডাকসু প্রতিনিধি হয়েও আজ শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবির সাথে থাকছে না।’

তিনি আরও বলেন,‘আমি শিক্ষার্থীদের সকল যৌক্তিক আন্দোলনে ছিলাম এবং আছি। শিক্ষার্থীরা আজকে বুধবার (২৪ জুলাই) যে আন্দোলন করতে যাচ্ছে আমি তাতে একাত্মতা প্রকাশ করছি।’

‘অধিভুক্তি সাত কলেজ বাতিল চাই’ আন্দোলনের মুখপাত্র মুহাম্মদ শাকিল মিয়া বলেন,‘আমাদের অসহযোগ আন্দোলন আজও চলবে। আমরা আজ সাড়ে দশটায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করবো।

আজও বিশ্ববিদ্যালয়কে তালাবদ্ধ করার কর্মসূচি চলবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘আমরা আজও সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো তালাবদ্ধ করার। কিন্তু আমরা কারও সাথে কোনো সংঘর্ষে জড়াতে চাই না।’

জানা গেছে,‘সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল চাই আন্দোলনে অংশগ্রহণে করার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬০টি বিভাগের শিক্ষার্থীরা তাদের ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত