প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আইন প্রশাসনও রাজনৈতিক দলের প্রভাববহির্ভূত নয়

ববি হাজ্জাজ : দেশ, জাতি কেমন এক ভয়ংকর আতঙ্কে ভুগছে। গত কয়েকদিনে আমরা কিছু মর্মান্তিক ঘটনা দেখেছি, যেখানে ভুলভাবে নিরীহ কোনো ব্যক্তিকে অপরাধী হিসেবে আখ্যায়িত করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই নিষ্ঠুর হত্যাকা-ের ঘটনাগুলোর জন্য কোনো হেলমেট বাহিনী বা কোনো গুম বাহিনী দায়ী নয়। এই হত্যাকা-ের জন্য দায়ী আমরা। আমরা এদেশের আপামর জনগণ।  নিষ্ঠুরতার সব সীমা পার করেছি আমরা। তবে আমরা কি জাতিগতভাবে আসলেই এতো বর্বর হয়ে গেছি? এই ঘটনাগুলো আমাদের সামাজিক অবক্ষয়ের প্রতিচ্ছবি। রাজনৈতিক অবস্থান থেকে দেশব্যাপী একটি দলের জোরপূর্বক ক্ষমতা দখল ও পেশি শক্তি প্রদর্শন, এই সামাজিক অবক্ষয়ের জন্য দায়ী। সরকারি দলের সন্ত্রাস বাহিনীর হাত থেকে কোনো ধরনের প্রতিরক্ষা না থাকায়, ১৮ কোটি জনগণ আজ সত্যি ভীত এবং আতঙ্কিত। আজ যেমন এই সন্ত্রাস বাহিনীকে প্রতিরোধ করার ক্ষমতা জনগণের হাতে নেই, তেমনি তাদের বিরুদ্ধে আওয়াজ তোলার শক্তিও জনগণের নেই।

এই ক্ষোভে, ভয়ে, আশঙ্কায় মানসিকভাবে আমরা অসুস্থ হয়ে পড়ছি। ১৮ কোটি জনগণের এই মানসিক অসুস্থতার কারণ আজকের এই অপরাজনীতি। গণতন্ত্র আমরা হারিয়েছি, এখন আমরা আমাদের মানবতা হারাতে চলেছি। যখন আমরা শক্তিশালী কোনো হেলমেট বাহিনীকে প্রকাশ্য দিবালোকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে খুন করতে দেখি আর ভয়ে আওয়াজ তুলতে পারি না, তখন সেই চাপা তীব্র ক্ষোভটা প্রকাশ করার জন্য আমরা অস্থির হয়ে থাকি। ঠিক এমন সময় কোনো সুযোগ যদি আমরা পাই তখন সেই ক্ষোভ প্রচ- আকারে প্রকাশ করি। আমরা অপেক্ষাও করি না যাচাই করার জন্য কে দোষী কে নির্দোষ। আইন প্রশাসনের উপর থেকে জনগণের আস্থা অনেকখানি উঠে গেছে। আজ আইন প্রশাসনও রাজনৈতিক দলের প্রভাববহির্ভূত নয়। তাই আজ জনগণ আইন বারবার হাতে তুলে নিচ্ছে। আইন প্রশাসনের প্রতি অনাস্থা আর রাজনৈতিক সন্ত্রাস বাহিনীর ক্ষোভ, এই দুয়ের মিশ্রণে তৈরি হয়েছে জনগণের ভেতর এই আতঙ্ক । যার প্রতিফলনে এই নির্মম হত্যাকা-। আমরা নিষ্ঠুর নই, আমরা বর্বর নই, তবে আমরা বর্বরতা থেকে মুক্তি চাই। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত