প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গত ৩ মাসে ভারতের উত্তরকাশীর ১৩২ গ্রামে জন্ম নেয়নি একটিও কন্যাশিশু!

আসিফুজ্জামান পৃথিল : উত্তর ভারতে কোনোভাবেই মানা যাচ্ছে না ভ্রুণহত্যা। ভারতের উত্তরাখণ্ড সরকারের দেওয়া এক প্রতিবেদনে উঠে এলো এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। রাজ্যটির উত্তরকাশীর ১৩২ গ্রামে গত ৩ মাসে ২১৬টি শিশু জন্ম নিলেও এরমধ্যে একটিও কন্যা শিশু নেই! এএনআই, ইয়ন নিউজ, এনডিটিভি

কোন গ্রামে কত শিশু জন্ম নিল, তাতে নারী-পুরুষ ব্যবধান কতটা কমলো, তার হিসাব থাকে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের কাছে। তাদের সেই রিপোর্ট থেকেই সম্প্রতি এমন তথ্য সামনে এসেছে। জানা গিয়েছে, গত তিনমাসে উত্তরকাশীর ১৩২টি গ্রামে ২১৬ শিশু জন্ম নিয়েছে। যার মধ্যে, ডুন্ডা ব্লকের ২৭টি গ্রামে ৫১টি, ভাতওয়ারির ২৭টি গ্রামে ৪৯টি, নওগামের ২৮টি গ্রামে ৪৭টি, মোরির ২০টি গ্রামে ২৯টি, চিনিয়ালিসৌড়ের ১৬টি গ্রামে ২৩টি এবং পুরোলা ব্লকের ১৪টি গ্রামে ১৭টি শিশুর জন্ম হয়। কিন্তু তাদের মধ্যে একটিও শিশুকন্যা নেই। এই বিষয়ে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আশিস চৌহান বলেন, ‘আমরা এমন অনেকগুলো স্থান সনাক্ত করেছি, যেসব স্থানে কন্যাশিশু জন্মহার শূন্য বা সিঙ্গেল ডিজিটে রয়েছে। এর পেছনে কি কারণ রয়েছে তা অনুসন্ধানে আমরা বড় ধরণের জরিপ চালাবো।’ ইতিমধ্যেই অ্যাক্রেডিটেড সোশ্যাল হেলথ অ্যাক্টিভিস্ট (আশা)-এর সঙ্গে ইতিমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে জরুরি বৈঠক হয়েছে, তাঁদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তবে কন্যাভ্রূণ হত্যার প্রবণতা ব্যাপক আকার ধারণ করাতেই এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিশিষ্ট সমাজকর্মী কল্পনা ঠাকুর। সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ঐ গ্রামগুলিতে গত তিনমাসে একটিও শিশুকন্যা জন্মায়নি। এটা কখনোই কাকতালীয় ঘটনা হতে পারে না। বরং কন্যাভ্রূণ হত্যা যে ব্যাপক আকার ধারণ করেছে, এটা তারই ইঙ্গিত। সরকার এবং স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে কোনও পদক্ষেপই নিচ্ছে না।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত