প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৫০ হাজার কোটি টাকার লোকসান নিয়ে চলছে বিদ্যুৎ বিভাগ

শাহীন চৌধুরী : দেশের বিদ্যুৎ খাতের লোকসান যেন কমছেই না। বিল বকেয়ার পাশাপাশি বিদ্যুৎ বিভাগ বেশি দামে বিদ্যুৎ কিনে কম দামে বিক্রি করায় এই খাতে লোকসানও বাড়ছে।

বিদ্যুৎ বিভাগের সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, গত অর্থবছর পর্যন্ত গত ১০ বছরে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিপিডিবি) লোকসান দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা। বিদ্যুৎ খাত সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, নির্মাণাধীন বড় বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো উৎপাদনে এলে সরকারকে উচ্চ ব্যয়ে বিদ্যুৎ কিনতে হবে না। সেক্ষেত্রে লোকসানও কমে আসবে।

সূত্রমতে, সরকারি, আধাসরকারি/ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও প্রাইভেট খাত মিলিয়ে গত বছরের অক্টোবর পর্যন্ত বকেয়া বিদ্যুৎ বিল ছিলো প্রায় ছয় হাজার ৮৮৩ কোটি টাকা। অবশ্য বিদ্যুৎ বিভাগের হিসাব অনুসারে, ২০১৭ সালের নভেম্বর পর্যন্ত বিতরণ কোম্পানিগুলোর বকেয়া বিল ছিলো ছয় হাজার ১৩৮ কোটি টাকা। অথচ ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী জাতীয় সংসদে বকেয়া বিলের যে তথ্য দিয়েছিলেন, তাতে এর পরিমাণ উল্লেখ ছিলো ৫ হাজার ৩৮১ কোটি টাকা।
প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে, সবচেয়ে বেশি বিল বকেয়া আছে প্রাইভেট সেক্টরে পাঁচ হাজার ৪৭৬ কোটি টাকা। এর পরের সর্বোচ্চ বকেয়া আধা সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে ৭৬৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা। এছাড়া ৬৪২ কোটি ৯৮ লাখ টাকার বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে।

মন্ত্রণালয় ভিত্তিক তথ্য অনুসারে, সবচেয়ে বেশি বকেয়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ৩২৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা। এর পরের সবচেয়ে বেশি বিল বকেয়া রেখেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এ মন্ত্রণালয়ের কাছে বকেয়া বিদ্যুৎ বিল রয়েছে ১৪২ কোটি ৪৮ লাখ টাকা।
একইভাবে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে বকেয়া ১২৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। এছাড়া গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ৭৮ কোটি ১৬ লাখ টাকা, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ৬২ কোটি ৫০ লাখ টাকা, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় ৪৯ কোটি ২২ লাখ টাকা, ধর্ম মন্ত্রণালয় ৪৩ কোটি ১২ লাখ টাকা এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ৩১ কোটি ২৫ লাখ টাকার বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রেখেছে।
এর বাইরে কৃষি মন্ত্রণালয়ের কাছে ২৪ কোটি ৪২ লাখ টাকা, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের কাছে ২৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের কাছে ১৮ কোটি ২১ লাখ টাকা, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কাছে ১৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের কাছে ১১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা এবং আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কাছে ৬ কোটি ৯৯ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে। সবচেয়ে কম বকেয়া শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাছে ২০ হাজার টাকা।

সূত্রমতে, বকেয়া বিলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বিদ্যুৎ খাতের লোকসানও বাড়ছে। তথ্য অনুসারে, ২০১৭-১৮ অর্থবছর পর্যন্ত গত ১০ বছরে বিপিডিবির লোকসান দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা। শুধু গত অর্থবছরেই প্রতিষ্ঠানটির লোকসান হয়েছে আট হাজার কোটি টাকার বেশি। তার আগের অর্থবছরে ছিলো চার হাজার ৪৩৪ কোটি টাকা। এছাড়া ২০১৫-১৬ অর্থবছরে তিন হাজার ৮৬৬ কোটি টাকা ও ২০১৪-১৫ অর্থবছরেও ৭ হাজার ২৭৬ কোটি টাকা লোকসান দিয়েছিল বিপিডিবি।
বর্তমানে দেশে উৎপাদনে আছে মোট ১২৩টি বিদ্যুৎকেন্দ্র। এর মধ্যে বিপিডিবির নিজস্ব বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে ৪১টি। বাকি ৮২টি রেন্টাল, কুইক রেন্টাল, আইপিপি ও স্মল ইনডিপেনডেন্ট পাওয়ার প্রডিউসার (এসআইপিপি), যেগুলো থেকে বিদ্যুৎ কিনছে বিপিডিবি। এর মধ্যে রেন্টাল ও কুইক রেন্টাল ২৭টি এবং আইপিপি ও এসআইপিপি ৪৬টি। এসব বিদ্যুৎকেন্দ্রের ৫৪টিই জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করে ফার্নেস অয়েল ও ডিজেল, যা সবচেয়ে ব্যয়বহুল।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ জানান, এক হাজার ১৬৬ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ১৪টি কুইক রেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু আছে। বর্তমানে গ্যাস থেকে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদনে খরচ হয় দুই টাকা ৮০ পয়সা, ডিজেল থেকে ১৯ টাকা ৩০ পয়সা, ফার্নেস অয়েল থেকে ১১ টাকা ৪৮ পয়সা ও কয়লা থেকে সাত টাকা ৩৮ পয়সা। উৎপাদন খরচ বেশি হলেও ভর্তুকি দিয়ে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের বিক্রয়মূল্য চার টাকা ৮২ পয়সা রাখা হয়েছে। এ কারণেই বিপিডিবিকে লোকসান গুনতে হচ্ছে বলে তিনি জানান।
সম্পাদনা: অশোকেশ রায়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত