প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিষয়ে প্রিয়া সাহার অভিযোগ সঠিক নয়, বললেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

সুজন কৈরী ও স্বপ্না চক্রবর্তী :মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে সম্প্রতি এক বাংলাদেশি সংখ্যালঘু নির্যাতন বিষয়ে যে তথ্য দিয়েছেন তা সঠিক বলে মনে করেন না ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার। আজ  শুক্রবার বিকেলে রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত মিলার এসব কথা বলেন। মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আমার প্রথম ৮ মাসের দায়িত্ব পালনকালে আমি বাংলাদেশের আটটি বিভাগেই ঘুরেছি। মসজিদ, মন্দির ও চার্চে গিয়ে ইমাম পুরোহিতদের সঙ্গে কথা বলেছি। এখন আমি এসেছি একটি বৌদ্ধ মন্দিরে, আমার কাছে যেমনটা মনে হয়েছে, এখানকার ভিন্ন ভিন্ন বিশ্বাসের লোকজন একে অপরকে শ্রদ্ধা করে। তাই আমি মনে করি, তার অভিযোগ সঠিক নয়, বরং ধর্মীয় সম্প্রীতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একটি উল্লেখযোগ্য নাম। যদিও কোন দেশই সংখ্যালঘুদের অধিকার দিতে সফলতা পায়নি।’ তিনি আরো বলেন, ‘এ অঞ্চলের প্রধান ইস্যুগুলো কী তা যুক্তরাষ্ট্র ভালোভাবেই জানে।’

এদিকে অভিযোগের সত্যতা এখন পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যায়নি বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। আর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখা হবে।

শুক্রবার রাতে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি মাত্র ভিডিওটি দেখেছি। এটি বাংলাদেশের মানুষ কখনোই বিশ্বাস করবে না। এবং করেও না। কারণ আমাদের দেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ। প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনা রয়েছে সাম্প্রদায়িকতা বন্ধে। ট্রাম্পের কাছে ইন্টারভিউতে ওই মহিলা যে কথা দু:খের কথা বলেছেন তা তো কোনোদিন আমাদের কাছে বলেন নাই। এক্ষেত্রে আমি বলবো, আমাদের পুলিশ প্রশাসন অত্যন্ত সজাগ অবস্থানে রয়েছে যাতে করে দেশে কোনো ধরণের সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বা সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা না ঘটে। আর এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে বলে আমার জানা নেই। যদি কেউ কোনো চক্রান্ত বা উদ্দেশ্যমূলকভাবে এমনটি করেছেন বলে আমি বিশ্বাস করি। এমন কোনো ঘটনার তথ্য আমাদের কাছে এখন পর্যন্ত নেই। আমরা মহিলার প্রতি আহ্বান করবো, যাতে তার সাথে যদি কোনো ধরণের অন্যায় হয়ে থাকে তাহলে সে যেনো আমাদের কাছে আসে। আমরা অবশ্যই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।
প্রিয়া সাহার বক্তব্য নিয়ে নিজের ফেসবুক ওয়ালে একটি পোস্ট দিয়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখা হবে।

১৭ জুলাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে দেখা করেন চীন, তুরস্ক, কোরিয়া, মিয়ানমারসহ বিশ্বের ১৭টি দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ব্যক্তিরা। সেই সাক্ষাৎকারে অংশ নেন বাংলাদেশের প্রিয়া সাহা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে তিনি দাবি করেন, বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। বাংলাদেশে প্রায় ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান নিখোঁজ হয়েছেন। বর্তমানে এখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে উল্লেখ করে তিনি ট্রাম্পের সহায়তা চান। সম্পাদনা : আবদুল অদুদ

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত