প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে একসাথে কাজ করার অঙ্গীকার
জাতিসংঘে পালাউ দ্বীপপুঞ্জের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশ

নূর মাজিদ : নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরে আনুষ্ঠানিকভাবে কূটনৈতিক স¤পর্ক প্রতিষ্ঠায় দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ এবং পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলের দ্বীপপুঞ্জ রাষ্ট্র পালাউ। গত বৃহ¯পতিবার চুক্তিটি স্বাক্ষর করেন দুই দেশের জাতিসংঘ প্রতিনিধি। বাংলাদেশের পক্ষে স্বাক্ষর করেন জাতিসংঘ দূত মাসুদ বিন মোমেন এবং পালাউয়ের পক্ষে সেদেশের দূত ওলাই উলুদং। চুক্তিটি স্বাক্ষর প্রত্যক্ষ করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন এবং পালাউয়ের প্রেসিডেন্ট থমাস এসাং রেমেঞ্জেসাও জুনিয়র। সূত্র : নিউজ বিডি।

গত বৃহ¯পতিবার এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়টি প্রকাশ করে। বিবৃতিতে বলা হয়, উভয় দেশই জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ব্যাপক হুমকির মুখে। এই ইস্যুতে আন্তর্জাতিক ফোরামগুলোতে একযোগে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে উভয় দেশ। চুক্তি অনুসারে নিজেদের মাঝে পর্যটন ও বাণিজ্যিক লেনদেন জোরদার করার পাশাপাশি, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, বৈশ্বিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষার্থেও নিজেদের অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি করবে দুই দেশ।

১৯৯৪ সালে এক চুক্তির আওতায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে স্বাধীনতা লাভ করে পালাউ। প্রায় ৩৪০টি দ্বীপপুঞ্জের সমষ্টি পালাউয়ের মোট ভূখন্ডের আয়তন ৪৬৬ বর্গ কিলোমিটার। রাষ্ট্রটির সঙ্গে ফিলিপাইন এবং ইন্দোনেশিয়া এবং মাইক্রোনেশিয়া ফেডারেশনের সমুদ্রসীমা রয়েছে। ২০১৬ সালের হিসেব অনুসারে দেশটির মোট অধিবাসীর সংখ্যা ২১ হাজার ৫০৩ জন। যাদের অধিকাংশ বসবাস করেন কোরোর দ্বীপে। রাজধানী নগারুলমুড তার পার্শ্ববর্তী বাবেলদাওব দ্বীপে অবস্থিত। দেশটির অর্থনীতি মূলত পর্যটন এবং বিদেশী উন্নয়ন সাহায্যের ওপর নির্ভর করে।

বিবিসি সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রই পালাউয়ের সবেচেয়ে বড় দাতা দেশ। এছাড়াও দেশটির প্রতিরক্ষার দায়িত্ব মার্কিন সেনাবাহিনী পালন করে। দেশটিতে একটি মার্কিন সামরিক ঘাঁটিও আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত