প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পদ্মা যমুনায় তীব্র স্রোত, নৌরুটে অচলাবস্থা

আহমেদ শাহেদ : পদ্মা-যমুনা নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ও শিমুলিয়া-কাঁঠালিয়া রুটে নৌযান চলাচলে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। প্রচণ্ড স্রোতে কারণে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে তিনগুণ সময় বেশি লাগছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে চারটি ফেরি চলাচল করতে না পারায় বসিয়ে রাখা হয়েছে। যান্ত্রিক সমস্যায় সংস্কারে আছে রুটের ৭টি ফেরি। এ কারণে ঘাটে আটকে আছে কয়েক হাজার পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান। এ পরিস্থিতিতে এখন প্রতিটি ট্রাক পার হতে ৩/৪দিন সময় লেগে যাচ্ছে। ফলে পাকতে-পচতে শুরু করেছে কাঁচামাল। পাটুরিয়া ঘাটেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া ঘাটে বৃহস্পতিবার হঠাৎ ঘন কুয়াশায় সকাল ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত ফেরি চলাচল একেবারেই বন্ধ থাকে।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া অফিস সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে পাটুরিয়া ঘাট থেকে যাত্রী ও যানবাহন বোঝাই করে রোরো ফেরি আমানত শাহ দৌলতদিয়া ঘাটের উদ্দেশে রওনা দেয়। কিন্তু মাঝনদীতে এসে তীব্র স্রোতের কারণে ফেরিটি আর সামনে আগাতে পারেনি। এ অবস্থায় প্রায় ৪ ঘণ্টা সেখানে ইঞ্জিন চালু রেখে ফেরিটি স্থির রাখতে পারলেও একপর্যায়ে বাধ্য হয়ে পাটুরিয়া ঘাটে ফিরে যায়। একইভাবে বেলা ১২টার দিকে রোরো ফেরি শাহজালাল পাটুরিয়া থেকে দৌলতদিয়ার ৬নং ঘাটের কাছাকাছি এলেও তীব্র স্রোতে শেষ পর্যন্ত ঘাটে ভিড়তে পারেনি। ওই ফেরিটিও পুনরায় পাটুরিয়া ফিরে গিয়ে যাত্রী ও যানবাহন নামিয়ে দেয়। উদ্ধারকারী জাহাজের সহযোগিতায়ও ফেরি দুটিকে গন্তব্যে আনা সম্ভব হয়নি। বৃহস্পতিবার দুপুরে পদ্মায় পানি বেড়ে দৌলতদিয়ার ৬নং ঘাটের পন্টুন নিমজ্জিত হয়ে গেছে। পন্টুনের র‌্যাম উঁচু হয়ে যাওয়ায় সেখান দিয়ে ঠিকমতো যানবাহন ফেরিতে উঠতে পারছে না। ঘাট মেরামতের দায়িত্বে থাকা বিআইডব্লিউটিএ’র দায়িত্বশীল কাউকেই সেখানে দেখা যায়নি। এ সময় সেখানে উপস্থিত গোয়ালন্দের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল্লাহ আল মামুন রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবগত করলে তাদের কর্মীরা এসে ফেরির র‌্যাম ও নিমজ্জিত রাস্তায় বালু ও খোয়া ফেলে উঁচু করার কাজ শুরু করে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া অফিসের ব্যবস্থাপক আবু আবদুল্লাহ রনি জানান, রুটে চলাচলকারী ১৫টি ফেরির মধ্যে তীব্র স্রোতের কারণে চারটি ফেরি চলাচল করতে পারছে না। অন্য ফেরিগুলো ট্রিপে অতিরিক্ত সময় লাগায় ঘাট এলাকায় যানবাহনের সিরিয়ালের সৃষ্টি হয়েছে। তবে মানুষের দুর্ভোগ কমাতে যাত্রীবাহী যানবাহনগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে। পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার বিষয়ে তিনি বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পচনশীল পণ্যবাহী কিছু ট্রাক বাসের সঙ্গে দেয়া হচ্ছে। তিনি আরও জানান, মেরামতে থাকা রুটের পাঁচটি ফেরি আগামী সপ্তাহে রুটে যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্র জানায়, পদ্মা নদীতে অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি পেয়ে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে বৃহস্পতিবার স্রোতের তীব্রতা আরও বেড়েছে। মূল নদী থেকে লৌহজং টার্নিংয়ের প্রবেশমুখে সৃষ্টি হয়েছে ভয়াবহ ঘূর্ণাবর্ত। স্রোতের গতিবেগ বৃদ্ধি পেলে স্রোতের সঙ্গে চলতে না পারায় মঙ্গলবার থেকে এ রুটের সব ডাম্ব ফেরিসহ ১১টি ফেরি বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। বাকি ৫-৬টি ফেরি দিয়ে কোনো মতে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছিল। বুধবার রাত থেকে মাত্র ৩টি ফেরি চলছে। ফলে দুর্ভোগ আরও বেড়েছে। চলমান ফেরিগুলোও ঝুঁকি নিয়ে দীর্ঘসময় ব্যয় করে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। এতে উভয় পাড়ে সহস্রাধিক যানবাহন আটকে পড়ে আছে। যানবাহনের লাইন পদ্মা সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক পর্যন্ত পৌঁছেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত