প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাইনারি এরশাদের বাইনারি শত্রুমিত্র

ফারুক ওয়াসিফ: কৌশলী এরশাদ একসঙ্গে বিড়াল ও তার মুখে ধরা ইঁদুরকে হাসাতে পারতেন। বহুরূপী তিনি পুরুষদের বশ ও নারীদের মাতাতে জানতেন। এই কামরাঙা কবি একইসঙ্গে ভারতাশ্রিত আবার ইসলামছন্দ লোক। এই রাষ্ট্রধর্মবাদী শাসক প্রকাশ্য বহুগামিতা ও ভায়াগ্রার সেবক হিসেবে দেশের যৌনাধুনিকতারও দিশারি পুরুষ। তিনি সেনাবাহিনীর রাজনৈতিক ভূমিকা কমালেও তাদের নিয়ে গেছেন ক্ষমতা ও সম্পদ ভোগের বাজারে। এরশাদ রাস্তাঘাট বানিয়েছেন, প্রশাসনের বিকেন্দ্রীকরণ করেছেন। কিন্তু কৃষি ও শিল্পের সম্ভাবনা রদ করে রেখেছেন। বন্যায় হাঁটুপানিতে সাঁতার কেটেছেন ঠিকই কিন্তু ফ্লাড অ্যাকশন প্ল্যানের মতো সর্বনাশী নদীশাসন ব্যবস্থা হাতে নিয়েছিলেন। এরশাদের শাসনপদ্ধতি ছিলো শীর্ষব্যক্তি ছাড়া আর সকলেই ক্ষমতাহীন এবং খরচযোগ্য সেটাই বাংলাদেশের শাসকশ্রেণির মূল শাসনতরিকা।

এরশাদের জেলমুক্তি ও রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠাই বাংলাদেশে আইনের শাসনের আসল চেহারাটা দেখিয়ে দেয়। এরশাদ সাইকেলে চড়ে বেড়ালেও তার আমলেই ঋণখেলাপি ও দুর্নীতি সহজ স্বাভাবিক বলে প্রতিষ্ঠা পায়। উত্তরবঙ্গকে দরিদ্র করে রেখেও তিনি সে অঞ্চলের জনপ্রিয় নেতা। এরশাদ লাখো তরুণের যৌবনকে ধাওয়া করে নিজের যৌবন দীর্ঘায়িত করেছেন। রাস্তাঘাট বানানো ঠিকাদারনির্ভর এরশাদীয় উন্নয়ন মডেল এখনো ইন্ডাস্ট্রিনির্ভর স্থায়ী উন্নয়নের জরুরত ভুলিয়ে দিয়েছে। এরশাদের সমর্থকেরা তার এই বাইনারি রূপের পুরোটা দেখতে চান না। তার গুণমুগ্ধরা একটা দিক দেখেন, বিরোধীরা দেখেন পাল্টা দিকটা। এরশাদকে ‘ছোটো স্বৈরাচার’ বলে ছাড় দিয়ে ভুলে যাওয়া হয় যে, ছোট স্বৈরাচারের দেখানো পথ শুধু নয়, তাকে ছাড়া বাংলাদেশে বড় স্বৈরাচার কায়েম হতো না। এরশাদের আমলে ক্যু হয়নি বটে, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সেনাবাহিনীকে দুধ-মধুতে চোবানো তারই অবদান। সোভিয়েত ও আমেরিকা যখন স্নায়ুযুদ্ধে ব্যস্ত, তখন সুযোগ ছিলো দুই পক্ষকে কাজে লাগিয়ে স্বাধীন পররাষ্ট্র ও অর্থনৈতিক নীতি নিয়ে বাংলাদেশের উন্নত হওয়ার। এরশাদ আমাদের সেই কৌশলগত সুযোগ নষ্ট করেছেন বিধায় এখন আমরা ভারত ও চীনের কাছে ধরা। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত