প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রঙধনুর নয় রঙ

কামাল পারভেজ : গ্রীষ্মে ঘাসের ডগায় কখনো শিশির বিন্দু দেখেছো? প্রশ্নটা শুনে মাফিনের চোখেমুখে বিস্ময়। সব সময়ই শুনে এসেছে শীতেই কেবল শিশির ঝরে। কিন্তু গ্রীষ্মে!

উত্তর না পেলেও আবার জিজ্ঞেস করে জগত। জগত নির্ঝর। পাড়ায় যার খ্যাতি আছে উড়নচন্ডি হিসেবে। মাফিনের বছর দুয়েকের বড়।

আচ্ছা, শীতে বা বসন্তে রঙধনু নিশ্চয় দেখেছো? সদ্য বাইশ পেরুনো মাফিনের কাছে এটারও কোন উত্তর নেই। তাকে আরও বিস্মিত করে জগতের জানতে চাওয়া, রঙধনুর নয়টি রঙ দেখেছে কিনা।

ঘোর বর্ষায় কখনো কখনো বৃষ্টির আকাল পড়ে। গেলবার বর্ষায় অনেকটা মাঝকালেও বৃষ্টি ছিলনা। আকাশে ঠা ঠা রোদ। গায়ের চামড়াজ্বলা রোদ। কীযে হাহাকার অবস্থা।

মাঝে মাঝে শীতেও তাই হয়। ঠান্ডা থাকেনা, অথচ গরমের দাপট। যাকে বলে উল্টাপাল্টা আবহাওয়া। এসব দেখে অভ্যস্ত মাফিন। কিন্তু জগতের প্রশ্নের জবাব মেলাতে পারেনা। মগজেও টান পড়ে। খানিকটা চিনচিন করে।

কেমন এক রহস্যভরা হাসিমুখে তার দিকে তাকিয়ে থাকে জগত। উত্তর চায় কিনা তাও বুঝা যায়না। এটা কি তার হেঁয়ালিপনা!
তারা দুজন যে মোড়টায় বসেছিল, সেখানে মাথার ওপরে ছাতিম গাছ। আচমকা তার ওপরে উড়ে যায় একটি সবুজ কাক। সেটা চোখে পড়ে মাফিনের।

জগতের দিতে তাকাতেই দেখে তার কোন ভাবান্তর নেই। এখনও ঝুলিয়ে রেখেছে সেই রহস্যময় হাসি। যেন বলতে চাইছে, সবুজ কাকের রহস্যটাও বের করো এবার।

মাফিন ভেবে পায়না জগতকে সরাসরি জিজ্ঞেস করবে কিনা, এই কাকের রহস্য কি! সবুজ কাকা কি আসলেই আছে?
এক গোলকধাঁধায় পড়ে বিজ্ঞানের গাদা গাদা বইপড়া ছেলেটি।

তার কাছে এখন জগতকেই রহস্য লাগে। আজ সে এত অদ্ভুতুরে সব প্রশ্ন করছেন কেন? একটু ডানে তাকাতেই খোলা আকাশটা দেখা যায়। স্পষ্ট চোখে পড়ে একটি রঙধনু। চোখ কচলে নেয়। রঙধনুইতো!

মনে করার চেষ্টা করে এখন কী কাল? মানে কোন্ ঋতু? বোঝার চেষ্টা করে কয়টি রঙ।
আবারও তাকায় জগতের দিকে। এখনও হাসি ধরে রেখেছে মুখাবয়বে।

একটু ভাবতে চেষ্টা করে। পায়ের নখের দিকে তাকিয়ে। মাথার চুলেও আঙুল বুলিয়ে নেয়। মাথায় ভাবনা জট পাকালে মানুষ যেমনটি করে।  চোখটা আটকে থাকে হাত চারেক দূরে ঘাসের ওপর। বিন্দু বিন্দু জল, শিশিরের মতো। আবারও চোখটা কচলে নেয়। বার তিনেক। না, শিশিরইতো!

এখনতো মধ্যদুপুর। একটু এগিয়ে গিয়ে নেড়েচেড়ে দেখে। না, সব ঘাসের ওপরইতো শিশিরবিন্দু।
পিছন ফিরে তাকায় জগতের দিকে। জগত এবার অন্য দিকে তাকিয়ে আছে। তখনও হাসির আভাটা যায়নি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত