প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চীন মিয়ানমারকে কতোটা চাপ প্রয়োগ করতে পারে সেটিই এখন দেখার বিষয়, বললেন অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন

নুর নাহার : এক ধরনের আনুষ্ঠানিতার মাধ্যমে চীন আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে মিয়ানমার যে আচরণ করছে এবং বিষয়টি বিলম্বিত করছে তাদের রাজনৈতিক স্বদ্বিচ্ছা একেবারেই নেই, বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সর্ম্পক বিভাগের অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন। বিবিসি বাংলা ৭:৩০

দেলোয়ার হোসেন বলেন, চীন মিয়ানমারকে কতোটা চাপ প্রয়োগ করতে পারবে সেটিই এখন দেখার বিষয়। বাংলাদেশের পক্ষে যেটি দেখা যায়, প্রধানমন্ত্রীর কথা চীন ইতিবাচকভাবেই নিয়েছে। এই বিষয়গুলো যখন পলিসি নেবেলে আসবে , বাস্তবে কার্যক্রম হবে তখন বোঝা যাবে। বোঝার বিষয়, এই আশ্বাস কতোটা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়াকে বেগবান করে।

তিনি বলেন, চীন শুধু একমত হয়েছে, শুধু বলেছে। আনুষ্ঠানিক যে যোগাযোগ সেটি সর্বচ্চো পর্যায়ে এতো দিন হয়নি। শেষ পর্যন্ত মিয়ানমারকে চীন সত্যি সত্যি কোনো চাপ দিবে কিনা। তার সঙ্গে আরো অন্যান্য উপাদান যুক্ত হয়ে মিয়ানমারের অবস্থানের মধ্যে পরিবর্তন আসবে কিনা সেটি সময়ই বলে দিবে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ভবিষতে চীনা ঋণের দিকে ঝুঁকবে বিষয়টি এমন নয়। বিশেষ করে শ্রীলঙ্কার উদাহরণের পর থেকে চীনা ঋণের বিষয়টি প্রচলিত। ঋণ নেয়া এবং সেটি ব্যবহারের যে সক্ষমতা এই দুটি এক সাথে ঘটতে হবে। প্রধানমন্ত্রী যেটি বলেতে চেয়েছেন যে, বাংলাদেশের অর্থনীতি শক্তিশালী অবস্থানে আছে। দেশে প্রকল্প ঋণ নেয়া হলে তা অর্থনীতিতে অবদান রাখবে। সম্পাদনা : ইকবাল খান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত