প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খেলাপিঋণ ২ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা, হাইকোর্টে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন

এস এম নূর মোহাম্মদ : বাংলাদেশ ব্যাংকে বর্তমানে খেলাপি ও অকার্যকর ঋণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে দুই লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিঋণ ও এক লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা, বিভিন্ন আদালতের আদেশে আটকে আছে ৮০ হাজার কোটি টাকা এবং অবলোপনকৃত ঋণ ৩০ হাজার কোটি টাকা। নির্দেশ অনুসারে সোমবার হাইকোর্টে খেলাপিঋণের এ তথ্য উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চে তিনি প্রতিবেদনটি সিলগালা অবস্থায় উপস্থাপন করেন।
পরে বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী মো. মুনিরুজ্জামান বলেন, আদেশ অনুসারে ঋণখেলাপিদের তালিকা দাখিল করা হয়েছে। আইন অনুসারে ওই তালিকা গোপনীয় হওয়ায় তা সিল করা প্যাকেটে দাখিল করা হয়েছে। ওই তালিকায় এক কোটি টাকার ওপরে খেলাপিঋণের ১০ হাজার ৪৭৬টি অ্যাকাউন্টের নাম দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে এক হাজার ১০৬টি অ্যাকাউন্ট কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এবং নয় হাজার ৩৭০টি অ্যাকাউন্ট বিভিন্ন ব্যাংকের ঋণখেলাপি।

শুনানিতে হাইকোর্ট বলেন, ‘এখানে পাবলিকের টাকা নিয়ে খেলাপি হলেও অনেকে বিদেশে টাকা পাচার করে সেকেন্ড হোম বানাচ্ছেন। খেলাপিদের বিষয়টি আমরা দেখবো। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারে খেলাপিরা আরও উৎসাহিত হচ্ছেন আর ভালো গ্রহীতারা নিরুৎসাহিত হচ্ছেন । এটি ব্যবসাবান্ধব নয়। এই সার্কুলার জারির পর খেলাপিঋণ বেড়ে গেছে। এখন অনেকে ইচ্ছা করে খেলাপি হবেন।’
ব্যাংক মালিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে তারা ওয়াদা করে এলেন যে, সুদের হার ওয়ান ডিজিট কার্যকর করবেন। কিন্তু এই ওয়াদা রক্ষা করলেন না। প্রায় বছর পার হলো। বাংলাদেশ ব্যাংকও কোনো ব্যবস্থা নিলো না।’

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘কেউ কেউ ঋণ নিয়ে বিপদে পড়েছেন। বিনিয়োগ করে লোকসানে পড়েছেন। শিল্প প্রতিষ্ঠান করেও সমস্যা হয়েছে। এসব কারণে ঋণখেলাপি হয়েছেন। তাই এসব বিষয়ও বিবেচনা করতে হবে।

এ সময় হাইকোর্ট বলেন, কেউ কেউ শিল্প প্রতিষ্ঠান করার কথা বলে ঋণ নিয়ে নামে মাত্র শিল্প প্রতিষ্ঠান করে বাকি টাকা বিদেশে পাচার করে দিয়েছেন। এসব কারণেই ব্যাংকিং কমিশন করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

এদিকে মোট ঋণের দুই শতাংশ এককালীন জমা দিয়ে একজন ঋণখেলাপি ১০ বছরের জন্য ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ পাবেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের এমন নীতিমালার কার্যক্রমের ওপর স্থিতাবস্থার মেয়াদ আরও দুই মাস বাড়িয়েছেন হাইকোর্ট।

মানবাধিকার সংগঠন এইচআরপিবির করা রিট আবেদনে ঋণখেলাপির তালিকা দাখিল করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতি নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আর্থিক খাতে অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা বন্ধে কমিশন গঠনের কেন নির্দেশ দেয়া হবে না এবং এই কমিশনের সুপারিশ অনুসারে ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়।

সম্পাদনা: অশোকেশ রায়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত