প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জোর করে গর্ভধারণ নারীর জন্য দীর্ঘমেয়াদি শারিরিক সমস্যা তৈরি করে

নূর মাজিদ : পূর্ববর্তী গবেষণাগুলোয় দেখা গেছে, যেসব নারীরা তাদের গর্ভপাতের অধিকার হারান বা নিজ ইচ্ছের বিরুদ্ধে আইনি বা সামজিক বাঁধার কারণে সন্তানধারণে বাধ্য হন তারা স্বল্প মেয়াদে বেশকিছু শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হন। কিন্তু, এই ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ করে ভুল প্রতিপন্ন করেছে সা¤প্রতিক এক গবেষণা। সেখানে বলা হচ্ছে, স্বল্পমেয়াদি নয় বরং এমন অবস্থায় নারীরা সন্তান জন্ম দেয়ার বহুসময় পড়েও নানাবিধ জটিল ও দীর্ঘমেয়াদী শারীরিক সমস্যার শিকার হচ্ছেন। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া সান ফ্রান্সিসকোর সা¤প্রতিক এক গবেষণায় এই তথ্য উঠে আসে। যা চলতি মাসেই প্রকাশ করা হয়। সূত্র : ইউসিএফ ডটএডু।

গত ১১ জুন এই অ্যানালস অব ইন্টারনাল মেডিসিন নামক এক মেডিক্যাল জার্নালে গবেষণাটি প্রকাশ করা হয়। সেখানে গবেষকরা জানান, যে সকল নারীরা এই পরিস্থিতির মুখে পড়েছেন তাদের মাঝে অনেক বছর পড়েও হাড়ের জয়েন্টে তীব্র ব্যথা, নিয়মিত মাথাব্যথা বা মাইগ্রেনের সমস্যা প্রকটভাবে দেখা যাচ্ছে। সেই তুলনায় যেসব নারীরা স্বেচ্ছায় গর্ভপাতের সুযোগ পেয়েছেন তাদের মাঝে এসব সমস্যা অনেক কম।

গবেষণা প্রবন্ধের মুখবন্ধে বলা হয়, আজকের দিনের প্রেক্ষাপটে এই গবেষণা খুবই প্রাসঙ্গিক। নারীদের স্বেচ্ছা গর্ভপাত বন্ধ করা তাদের জন্যে খুব একটা ভালো ফল বয়ে আনেনা। বরং দীর্ঘমেয়াদী শারীরিক সমস্যার ঝুঁকি তৈরি করে। প্রধান গবেষক ড. লরেন রালফ এই মুখবন্ধ লেখেন।

ওই গবেষণায় আরো উঠে আসে, যেসব নারীরা গর্ভপাত করতে চান তাদের প্রতি ২০ জনের মাঝে ১ জন নিজস্ব স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারণেই এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন। বর্তমানে যখন মার্কিন রাজ্যগুলো দক্ষিণপন্থী রক্ষণশীল রাজনীতির প্রভাবে গর্ভপাত বন্ধের উদ্যোগ নেয়ার পরিকল্পনা করছে, তখন নারীদের জন্যে তারা অতিরিক্ত হুমকি সৃষ্টি করছে। গর্ভপাত বিরোধীদের পাল্টা দাবী, গর্ভপাতের কারণে নাকি নারীরা বরং অধিক স্বাস্থ্যগত সমস্যায় পড়েন। যদিও, তাদের এমন দাবীর পেছনে কোন যৌক্তিক বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত