প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গাদের দায় বিশ্ববাসী ও জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে নিতে হবে, বললেন আসিফ মনির

নুর নাহার : যুদ্ধ বিগ্রহ, সংঘাত ও নির্যাতনের মুখে বিশ্বব্যাপি ৭ কোটিরও বেশি মানুষ ২০১৮ সালে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাতে বাধ্য করেছেন। সে হিসেবে এখন প্রতিমিনিটে ঘর ছাড়তে বাধ্য হচ্ছেন ২৫ জন মানুষ। বিবিসি বাংলা ৭.৩০
জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা ইউএনএফসিআর বলছেন, গত ৭০ বছরের ইতিহাসে এতো বেশি সংখ্যাক মানুষ আর কখনো গৃহহীন হয়নি। সরকারি হিসেবে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা রয়েছে প্রায় ১১ লাখ। কিন্তু মিয়ানমারে তাদের ফেরত যাওয়া নিয়ে চলছে অনিশ্চয়তা।

দীর্ঘদিন ধরে অভিবাসন ও সরণার্থী সমস্যা নিয়ে কাজ করা আসিফ মনির রোহিঙ্গাদের ভবিষৎ নিয়ে বলেন, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের আদৌ ফেরত নিবে কিনা বলতে পারবো না। তবে এখন প্রায় মোটামুটি নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে যতদুর সম্ভব এটিকে প্রতিহত করার চেষ্টা করবে।

সেক্ষেত্রে বিশ্ববাসীর এটি একটি বড় দায়িত্ব নিতে হবে। হয় তাদের দেশে সংস্থা করা বা তাদের থাকার ব্যবস্থা করতে হবে। যেটুকু মানবিক সহায়তা দেয়ার সেটি দিতে হবে। তা নাহলে মিয়ানমারের ওপর কোনো রকম বাধ্যবাধকতা, নিষেধাক্কা আরোপ করতে হবে। বিশেষকরে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের এই দায় নিতে হবে। তবে প্রথমটিই চেষ্টা করাটিই বোধ হয় বাস্তব সম্মত হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারকে একটু নতুন করে ভাবতে হবে। গত দুই বছরে বিশেষ পরীক্ষা নিরীক্ষা হয়েছে। তারা বাংলাদেশে এর আগে অনেক বছর ধরেই রয়েছেন। ৯০ দশকে একধাপে কিছু ফেরত গিয়েছে। সেই একই মানুষেরা বিভিন্ন সময় ফিরে এসেছে। কাজেই একটি কর্ম কৌশল, র্দীঘমেয়াদি পদক্ষেপ নেয়া, বিশেষ করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ও বিশ্ববাসীকে। মিয়ারমারের সাথে ফেরত নেয়ার আলোচনা থেকে সরে আসার দরকার নেই কিন্তু যদি ভিন্নভাবে চাপ দেয়া যায়।

তিনি আরো বলেন, এখানে দেশি বিদেশি সব সংস্থাই তাদের অভিঙ্ঘতা কাজে লাগিয়েছে। তাদের আরো বেশি দরকার রয়েছে। তবে তাদের খরচের জায়গাটি কমিয়ে এনে আরো কার্যকরভাবে এটিকে কাজে লাগানো যেতে পারে। সম্পাদনা : রাশিদুল

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত