প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড, দুর্দান্ত সেঞ্চুরি উইলিয়ামসনের

মাজহারুল ইসলাম ও আক্তারুজ্জামান : উত্তেজনা টানটান, ৬ বলে ৮ রান দরকার নিউজিল্যান্ডের। এরপর ৫ বলে ৭, দ্বিতীয় এই বলেই ছক্কা মেরে সেঞ্চুরি হাঁকালেন অধিনায়ক উইলিয়াম। ফলে ৪ বল থেকে ১ দরকার, আর সেটা তিনি নিজেই করে নিলেন। ম্যান অব দ্য ম্যাচ আর কেই বা হবেন? তিনিই সেই।

প্রথমে ব্যাটে নেমে ধীরে-সুস্থে খেলে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২৪১ রান তুলেছিলো দক্ষিণ আফ্রিকা। এভাবে শুরুটা হয়তো করতে চায়নি দক্ষিণ আফ্রিকা। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে জিততে হলে বড় রানের দরকার, এটা ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনেও বলেছিলেন দলটির অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। কিন্তু মাঠে নেমে আর রান বাড়াতে পারলেন কই? বৃষ্টির কারণে পিচের গতি কমার প্রভাব ছিল প্রোটিয়াদের ব্যাটিংয়েও। মন্থর গতিতে চলতে গিয়ে রানের চাকা একেবারেই থমকে গিয়েছিল প্রোটিয়াদের। ধীরে-সুস্থে খেলে শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৪৯ ওভার ব্যাটিং করেও (বৃষ্টির কারণে দেরিতে খেলা শুরু হওয়ায় ১ ওভার কমানো হয়েছিল) ২৪১ রান তুলেছে তারা। তখনও হাতে ছিল ৪ উইকেট।

বুধবার এজবাস্টনে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে দেখে-শুনে খেলা শুরু করেছিলেন ডি কক ও আমলা। তাদের মন্থর গতিতে আর কেউই তীব্রতা আনতে পারেননি। ফলে রানও ওঠে একেবারেই কম। আমলা ৫৫ রানে আউট হওয়ার আগে দ্রুততম ৮ হাজারি ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন। ডি কক ৫, মার্করাম ৩৮ এবং দলনায়ক ডু প্লেসিস ২৩ রানে ফিরেছেন।

পরে দলের হাল ধরে ধীরে ধীরে এগিয়ে নেন ডেভিড মিলার ও ভ্যান ডার ডুসেন। ডুসেন অপরাজিত থাকেন ৬৭ রানে। মিলার ফিরে যান ৩৬ রান করে। এ জুটির ৭২ রানই ছিল সর্বোচ্চ পার্টনারশিপ। এছাড়া বাকিদের রান আর বলার মতো ছিল না।
নিউজিল্যান্ডের হয়ে বল হাতে গতির ঝড় তোলেন লকি ফার্গুসন, ট্রেন্ট বোল্ট ও ম্যাট হেনরি। লকি ফার্গুসন সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন। এছাড়াও বোল্ট, গ্র্যান্ডহোম ও স্যান্টনার একটি করে উইকেট নিয়েছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত