প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংসদে চীনা সংসদীয় প্রতিনিধি দল উন্নয়ন অংশীদারিত্ব আরো শক্তিশালী করার প্রতিশ্রুতি

আসাদুজ্জামান সম্রাট : বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের উন্নয়ন অংশীদারিত্ব আরো শক্তিশালী করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বাংলাদেশ সফররত চীনা সংসদীয় প্রতিনিধি দল। প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বৈঠককালে এই প্রতিশ্রুতি দেন।
বৈঠক শেষে প্রতিনিধি দলের সদস্যরা কিছু সময় সংসদ অধিবেশন পর্যবেক্ষণ ও পরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর পরিদর্শন করেন।

সংসদ সচিবালয় জানিয়েছে, ১৩তম ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস অব চায়নার (এনপিসি) স্টান্ডিং কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও চায়নিজ এ্যাসোসিয়েশন ফর ইন্টারন্যাশনাল আন্ডারস্ট্যান্ডিং-এর প্রেসিডেন্ট জি বিংজুয়ানের নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল স্পিকারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে তারা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়ন, বাংলাদেশের অবকাঠামোগত ও আর্থ সামাজিক উন্নয়ন, বাণিজ্য প্রসার, সিল্করোড কানেক্টিভিটি স্থাপন ও সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপের বিষয়ে আলোচনা করেন।

আলোচনাকালে স্পিকার বলেন, বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন অংশীদার চীন। বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে বিশেষ করে ১০০টি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ, হাইটেক পার্ক ও তথ্য-প্রযুক্তি ক্ষেত্রে চীনের বিনিয়োগের সুযোগ রয়েছে। বিনিয়োগ বাড়ানোর মাধ্যমে জনবহুল বাংলাদেশের তরুণদের কর্মসংস্থান নিশ্চিতে চীন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। দুদেশের সংসদ সদস্যদের সফর বিনিময় এবং মৈত্রী গ্রুপ গঠনের মাধ্যমে বিদ্যমান সম্পর্কে নতুন মাত্রা যোগ হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বাংলাদেশকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বন্ধুপ্রতীম দেশ হিসেবে উল্লেখ করে চীনা প্রতিনিধি দলের প্রধান বলেন, পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। আঞ্চলিক সংযোগ বৃদ্ধি এ অঞ্চলের সকল দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বয়ে আনবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের উন্নয়ন অংশীদারিত্ব দিন দিন শক্তিশালী হচ্ছে। ভবিষ্যতে উন্নয়ন সহযোগিতা আরো বাড়বে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বগুণ ও জনগণের প্রতি ভালবাসার ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি।

ডেপুটি স্পিকারের সঙ্গে বৈঠক

চীনা সংসদীয় দলের প্রতিনিধিরা দুপুরে সংসদ ভবনের কেবিনেট কক্ষে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন।
‘সিল্করোড অর্থনৈতিক বেল্ট’ নির্মাণের উদ্যোগের প্রশংসা করে ডেপুটি স্পিকার বলেন, এই সড়কের মাধ্যমে আঞ্চলিক সহযোগিতা বাড়বে। সিল্করোড কার্যকরের মাধ্যমে বাংলাদেশের সাথে থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, হংকং ও চীনের সঙ্গে যোগাযোগ সহজতর হবে। এতে এ অঞ্চলের মধ্যকার ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়বে। জনগণের সঙ্গে জনগণের সম্পর্ক আরো সুদূঢ় হবে। তিনি আঞ্চলিক সহযোগিতার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন।
জবাবে চীনের প্রতিনিধি দলের প্রধান বলেন, পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। আঞ্চলিক সংযোগ বৃদ্ধি এ অঞ্চলের সকল দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বয়ে আনবে। ভবিষ্যতে দ্বিপাক্ষিক ইস্যুতে একত্রে কাজ করা সম্ভব হবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর পরিদর্শন

জি বিং জুয়ান-এর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের চীনা প্রতিনিধিদল বিকেলে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন কালে তারা বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসামান্য অবদান ও ত্যাগের বিষয়টি উল্লেখ করেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল উপস্থিত ছিলেন। তিনি চীনা প্রতিনিধিদলের নিকট বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

সম্পাদনা: অশোকেশ রায়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত