প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দর্শককে পুনরায় ফিরিয়ে আনতে বিটিভির দরকার শুধু নতুন পরিকল্পনার

মুসবা তিন্নি : বর্তমানে স্মার্টফোন আসায় টেলিভিশন মাধ্যম এখন বেশ হুমকির মুখে। তবে অভিনয় ও সংগীতজগতের অনেকের মতে, মানুষ এখনো টেলিভিশনে নাটক, গান কিংবা অন্যান্য অনুষ্ঠান দেখায় স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে পরিচালক ও অন্যান্য নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরা প্রায়ই বলেন, বাজেট নেই, তাই ভালো মানের অনুষ্ঠান তাঁরা নির্মাণ করতে পারছেন না। এ ক্ষেত্রে পুরোপুরি ব্যতিক্রম বিটিভি। প্রতিষ্ঠানটিতে বাজেটের কোনো সমস্যাই নয়, সমস্যা পরিকল্পনার ও সৃজনশীল মানুষের। কেউ কেউ আবার বলছেন, আমলাতান্ত্রিক জটিলতা ও ছকেবাঁধা নিয়ম থেকে বের হতে না পারাটাও বড় কারণ।

একটা সময় বাংলাদেশ টেলিভিশন ছাড়া অন্য কোনো চ্যানেল দেখার সুযোগ ছিল না। দুই দশকে সেই চিত্র অনেকটাই বদলে গেছে। দর্শকের হাতে এখন বেছে নেওয়ার সুযোগ অনেক। রিমোটে চাপ দিয়ে যেকোনো চ্যানেলে চলে যাওয়া যায়। বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক হারুণ অর রশিদ বলেন, ‘বাজেট বিটিভির সমস্যা নয়। আমরাই আমাদের বাজেট নির্ধারণ করি। আমাদের দরকার শুধু পরিকল্পনা। দরকার শুধু সৃজনশীল মানুষ।’ কেন বিটিভি দেখতে চায় না মানুষ এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার বলেন, ‘বিটিভিতে সৃজনশীল মানুষেরা খুব একটা সুযোগ পান না চাকরির নীতিমালার কারণে। এ ছাড়া বিটিভির নিয়োগ দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল। যার ফলে নতুন মেধা আসার সুযোগ পায়নি। দর্শক রুচির পরিবর্তন হয়েছে। নতুন প্রজন্মকে অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত করতে না পারলে এসব অনুষ্ঠান নিয়ে কেউ ভাববে না এটাই স্বাভাবিক।’ বাইরে থেকে চুক্তিভিত্তিতে লোক নিয়োগ দেওয়া, বেতন কম হওয়ায় সৃজনশীল তরুণেরাও বিটিভিতে চাকরি করতে আগ্রহী হচ্ছে না বলে মনে করছেন রামেন্দু মজুমদার।

মহাপরিচালকের চেষ্টার কথা তুলে ধরেন নাট্যজন মামুনুর রশীদ। তিনি বলেন, ‘যদিও এই প্রতিষ্ঠানে সিস্টেম জটিলতা আছে, এরপরও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বর্তমান ডিজি। সবচেয়ে বড় যে সমস্যা, ১৯৮১ সালের পর এ প্রতিষ্ঠানে কোনো প্রযোজক নিয়োগ হয়নি। রাষ্ট্রীয় এই গণমাধ্যমকে চাঙা করতে হলে প্রতিভাবানদের ডেকে এনে চাকরি দিতে হবে। আমি যত দূর জানি, মুস্তাফা মনোয়ার, আবদুল্লাহ আলমামুন, কলিম শরাফীর মতো গুণীজনদের ডেকে এনে বাংলাদেশ টেলভিশনে চাকরি দেওয়া হয়। মেধা ছাড়া ভালো অনুষ্ঠান কিভাবে হবে । ১৫ বছর আগে বাংলাদেশ টেলিভিশন থেকে অবসর নিয়েছেন মোস্তফা কামাল সৈয়দ। তিনি এখন বেসরকারি টেলিভিশন এনটিভির অনুষ্ঠান বিভাগের উপদেষ্টা। তাঁর মতে, তাঁদের সময়টাতে যেভাবে কাজ হয়েছিল, এখন সেভাবে হচ্ছে না। একটা শূন্যতা শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ টেলিভিশনের অনেক সীমাবদ্ধতা আছে, সেগুলো কাটিয়ে ওঠাও বেশ কঠিন। ভালো অনুষ্ঠান নির্মাণে প্রতিবন্ধকতা, তা দূর করতে হবে। ফ্রিল্যান্সারদেরও সুযোগ করে দিতে হবে।  সূত্র: প্রথম আলো

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত