প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ছাত্রলীগের অবস্থান কর্মসূচির মূলে কি তবে সিন্ডিকেট!

মুহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন, ঢাবি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ, কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দেওয়া, যোগ্যদের কমিটিতে পদায়ন এবং মধুর ক্যানটিন ও টিএসসিতে পদবঞ্চিতদের ওপর হামলার সুষ্ঠু বিচার এই চার দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। গত ২৭মে থেকে শুরু করে দীর্ঘ ১৫দিন পার হতে চললেও রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থানকারী এ নেতাকর্মীরা আশ্বাস পাননি তাদের দাবি পূরণের। ওদিকে ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামীলীগ নেতারা বলেছেন সিন্ডিকেটের কথায় পদবঞ্চিতরা রাজু ভাস্কর্যে অবস্থান করছে।

১০ জুন, সোমবার ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের ৪নেতার মধ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘শেখ হাসিনা ছাত্রলীগকে সিন্ডিকেট মুক্ত করেছেন। তাই কে কার কথা মেনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করল বা ফুটপাত দখল করল তা নিয়ে ভাবার সময় নেই। কারণ ছাত্রলীগের কয়েক হাজার যোগ্য নেতাকর্মী রয়েছে যারা পদ পাওয়ার যোগ্যতা রাখে কিন্তু সবাইকে পদ দেয়া সম্ভব নয় এটি বুঝতে হবে।
তিনি আরো বলেন, ‘সবাইকে তো পদ দিয়ে খুশি করা সম্ভব নয়। ছাত্রলীগ তার নিজ গতিতে এগিয়ে যাবে।’

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, আমাদের কমিটির আগের তিনটি কমিটি বিভিন্ন মাধ্যমে (সিন্ডিকেটের) মাধ্যমে কমিটি প্রদান করা হয়েছে। পদবঞ্চিতরা চাচ্ছে আবার সেইরকম বলয় ফিরে পেতে। এইজন্যই তারা অবস্থান কর্মসূচি পালন করে কমিটিকে বিতর্কিত করতে চাইছে। যাতে আপা( প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) অভিমান করে নিজে আর কখনো কমিটি ঘোষণা না করেন তাহলেই তাদের স্বার্থ উদ্ধার হবে।

তবে পদবঞ্চিতদের অবস্থান কর্মসূচির মুখপাত্র ছাত্রলীগের সাবেক কর্মসূচি ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক রাকিব হোসেন ‘সিন্ডিকেটের’ নির্দেশ বাস্তবায়নের অভিযোগটিকে মিথ্যা এবং মনগড়া আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘বর্তমান কমিটিতে গোলাম রাব্বানীই সিন্ডিকেটের একমাত্র লোক। সিন্ডিকেট বলতে তিনি যাঁর কথা বলেছেন তিনি তাঁরই লোক।’

পদবঞ্চিতদের অবস্থান কর্মসূচির আর এক মুখপাত্র সাবেক প্রচার সম্পাদক সাঈফ বাবু বলেন, ‘বিতর্কিতদের কমিটি থেকে বাদ দিয়ে যোগ্যদের পদায়ন করলেই আমরা আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করব।

উল্লেখ্য, গত ১৩ মে ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর এই নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। মাদক, হত্যা মামলা, স্বাধীনতা বিরোধীর সন্তান, শিবির, বিবাহিতসহ নানা কারণে বিতর্কিত ৯৯নেতার নামও সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ করেছিলেন পদবঞ্চিতরা । কমিটি নিয়ে বিতর্কের জেরে গত ২৮ মে রাতে ১৯ জনের পদ শূন্য ঘোষণা করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেন ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তবে ১৯ জনের মধ্যে কারা রয়েছেন তা প্রকাশ করা হয়নি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত