প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এভারেস্টে পাওয়া গেল ৪টি মৃতদেহ ও কয়েকটন বর্জ্য

সুস্মিতা সিকদার : ২০ জন শেরপার একটি দলকে এভারেস্টের পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নিয়োজিত করা হয়। তারা কয়েকদশকের জমে থাকা ১১ টন বর্জ্য ও মৃতদেহ এভারেস্ট থেকে সংগ্রহ করে বলে বুধবার নেপাল সরকার জানিয়েছে। ইয়ন

আরোহীরা এভারেস্টের ৮৮৫০ মিটার উচ্চতায় গিয়ে ফিরে আসার পর জানিয়েছে, এভারেস্টে আরোহীদের বর্জ্য, ব্যবহৃত অক্সিজেন বোতল, ছিন্নভিন্ন তাবু, দড়ি, ভাঙা মই, ক্যান এবং প্লাষ্টিক জমা হয়ে আছে। এটা নেপালের জন্য খুবই বিব্রতকর কারণ দেশটি এভারেস্ট অভিযান থেকে প্রচুর পরিমান রাজস্ব আয় করে।

বেশ কয়েক বছর ধরে এভারেস্টে ৩০০ অভিযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে এবং কয়েকটন বর্জ্য জমা হয়েছে। যা শীতকালে বরফে ঢেকে যায় এবং গ্রীষ্মকালে বরফ গলে মৃতদেহ এবং বর্জ্য বের হয়ে আসে।

দ্য ডিপার্টমেন্ট অব টুরিজম এর ডিরেক্টর জেনারেল ডান্ডু রাজ ঘিমিরে জানিয়েছেন, ২০ সদস্যের ওই দল এপ্রিল এবং মে মাস ধরে বিভিন্ন বেস ক্যাম্পের উপরের অংশের আশ পাশ থেকে ৫টন এবং আরো ৬ টন বর্জ্য সংগ্রহ করেছে বেস ক্যাম্প এর নিচের অংশ থেকে। তবে দক্ষিণ দিকের পর্বতমালা থেকে সংগৃহিত বর্জ্য খারাপ আবহাওয়ার কারণে নামিয়ে আনা সম্ভব হয়নি।

এভারেস্ট পরিচ্ছন্নতা অভিযানের কোঅর্ডিনেটর শেরপা নিম দর্জি জানিয়েছেন, ঝুকিপূর্ণ তুষারপাত এলাকায় খুম্বুতে পাওয়া গেছে ২টো মৃত দেহ এবং তৃতীয় ক্যাম্পের পশ্চিমে কিউম অঞ্চলে। এই চারটি মৃতদেহ সনাক্ত করা যায়নি এবং তারা কবে মারা গিয়েছে তাও জানা যায়নি।

সম্প্রতি অরোহীরা ফিরে এসে জানিয়েছে, ‘ডেথ জোনের’ কেবলই নিচে আরোহীদের ভিড়ে জ্যাম লেগে যাচ্ছে । ওই জায়গাটিতে অক্সিজেনের অভাবে অনেক আরোহী এবং গাইড মারা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, এবছর শীতকালীন সামিটে নেপাল ৩৮১ আরোহীকে এভারেস্টে আরোহনের অনুমোদন দেয়। প্রত্যেক আরোহীকে এর জন্য ১১ হাজর মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হয়। যা নেপালের আয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত