প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জয়শঙ্করকে মন্ত্রী করার নেপথ্য বহু কারণ

জাবের হোসেন : বিন্দুমাত্র পূর্বাভাস না থাকা এই সিদ্ধান্তটি প্রকাশ্যে আসতেই হইচই পড়ে যায় রাজনৈতিক শিবিরে। গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকার সময় থেকেই নরেন্দ্র মোদীর প্রিয় প্রাক্তন এই পররাষ্ট্রসচিব। কিন্তু তাকে মন্ত্রী হিসাবে শপথ নেওয়ানো হবে, এটা অনুমান করতে পারেননি কেউই। তাকে পররাষ্ট্র অথবা বিশ্ববাণিজ্যের টানাপড়েনের সমীকরণ সামলাতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে।

১৯৭৭ সালের ব্যাচ-এ প্রথম স্থানাধিকারী এই আইএফএস অফিসারকে মোদী তার দ্বিতীয় ইনিংসে মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসার ফলে একাধিক বার্তা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। চীন এবং আমেরিকায় ভারতের রাষ্ট্রদূত হিসাবে কাজ করেছেন জয়শঙ্কর। কাজ করেছেন রাশিয়াতেও। সাবলীলভাবে রাশিয়ান এবং মান্ডারিন বলতে পারেন তিনি। আগামী দিনে এই তিনটি রাষ্ট্রের সঙ্গে ভারতের বাণিজ্যিক সম্পর্ককে নিরাপদে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া মোদীর অগ্রাধিকারের মধ্যে পড়ে।

বিশেষত চীনের সঙ্গে সম্পর্কে গত ৫ বছরে যে ঝড় ঝাপটা গিয়েছে, তার ক্ষয়-ক্ষতি মেরামত করতে বার বার জয়শঙ্কর অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছেন। লাদাখের দেবসাং-এ চীনা সেনার অনুপ্রবেশ এবং ডোকলামে চীন-ভারতের মুখোমুখি সংঘর্ষ প্রশমিত করতে জয়শঙ্করের ভারসাম্যের কূটনীতিকেই কাজে লাগিয়েছিলেন মোদী। মনমোহন সিংহের জমানায় ভারত-মার্কিন অসামরিক পরমাণু চুক্তির সফল রূপায়নে রণেন সেনের পাশাপাশি জয়শঙ্করের ভূমিকাও ছিল উল্লেখযোগ্য।

মোদী মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে যখন চীন সফরে যান, জয়শঙ্কর তখন সে দেশে রাষ্ট্রদূত। তিনি নিজের উদ্যোগে মোদীকে চীনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ নেতার সঙ্গে দেখা করিয়ে দিয়েছিলেন। গুজরাটে চীনা বিনিয়োগ টানার জন্যও যথেষ্ট সহায়তা করেছিলেন। বিষয়টি ভোলেননি মোদী। তিনি ক্ষমতায় আসার পর তৎকালীন পররাষ্ট্রসচিব সুজাতা সিংহের মেয়াদ কাটছাট করে জয়শঙ্করকে পদে বসানো হয়েছিল। তার পরে এ বার পূর্ণমন্ত্রী। সম্পাদনা- কায়কোবাদ মিলন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত