প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পাঁচতলা থেকে ফেলে সদ্য ভূমিষ্ঠ শিশু হত্যা : সামাজিক  অবক্ষয়ের আর কতো পতন দেখবো আমরা?

আতিক খান : সদ্য ভূমিষ্ঠ হওয়া শিশুটাকে ৫ তলা হতে ছুঁড়ে ফেলায় ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া শরীরের ছবি দেখার পর হতেই অসুস্থ লাগছে। কতোটুকু অমানুষ হলে একজন মা নিজের গর্ভজাত সন্তান ঠা-া মাথায় হত্যা করে। তাও পাঁচতলা বিল্ডিংয়ের বাথরুমের ভেন্টিলেটর দিয়ে চাপ দিয়ে বের করে ফেলে দেয়া! ভেন্টিলেটরের গায়ে রক্তের দাগ ছিলো। যতো সুন্দর দেখতে মেয়েটা ততোই কুৎসিত মেয়েটার স্বভাব চরিত্র। একে তো আত্মীয়ের সাথে ব্যভিচার তার উপর নিজের সন্তান হত্যা। এদেরকে এজন্যই পাথর ছুঁড়ে হত্যা করতে বলা হয়েছে।  মেয়েটার অভিভাবক আর পরিবার কই? শিশুর জনকই বা কোথায়? ছেলেটা দায়িত্ব নিলে আজ এই দুর্ঘটনা ঘটতো না।

একটা শিশু মাত্র দুনিয়াতে চোখ খুলেই মানুষের এতো কদর্য রূপটা চাক্ষুষ করলো। ওর কি দোষ ছিলো? দুজন নারী-পুরুষের ক্ষণিকের উন্মত্ততার বলি হলো এই নিস্পাপ শিশু। এরা রুমডেট করতে পারে কিন্তু শিশুর দায়িত্ব নিতে রাজি নয়। এদের বাবা-মাও যদি এই দুই নরকের কীটের দায়িত্ব না নিতো, আজ একজন শিশুর জীবন রক্ষা পেতো। বাচ্চাটার নিষ্প্রাণ দৃষ্টি আমাদের সবাইকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। কোথায় যাচ্ছি আমরা? সামাজিক অবক্ষয়ের আর কতো পতন দেখবো? এই দুই খুনি বাবা-মায়ের পরিবারও কেন দায়ী হবে না? সবাইকে আইনের আওতায় আনা হোক।

দুই ব্যভিচারী নারী-পুরুষেরও সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা দরকার। কদিন পরপরই নবজাতকের লাশ পাওয়া,যাচ্ছে অলিতে গলিতে, স্টেশনে, ডাস্টবিনে। অথচ একটা সন্তানের জন্য হাহাকার আর দীর্ঘশ্বাসে ভারী হয়ে আছে কতো শত দম্পতির সংসার? হ্যাশট্যাগ : রূপনগর, মিরপুর। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ