প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

২০০৯ সালের আইনে ২০০৮ সালে বিয়ে!

মুহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন : ২০০৯ সালের বিবাহ বিধিমালায় ২০০৮ সালে বিয়ে! হ্যাঁ এমনটিই হয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগে প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া নেত্রী বিএম লিপির ক্ষেত্রে। বিএম লিপি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়(ঢাবি) কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)র কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া বিষয়ক সম্পাদক, ঢাবির রোকেয়া হলের সভাপতি এবং ছাত্রলীগের নবগঠিত পূণার্ঙ্গ কমিটির উপ সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক। তবে তিনি উপ সাংস্কৃতিক পদ পেয়ে অসন্তুষ্ট হয়ে পদবঞ্চিতদের সাথে আন্দোলন সংগ্রাম করছেন এবং অভিযোগ করে আসছেন তাকে মূল্যায়ন করা হয়নি।

মঙ্গলবার ২৮ মে, ২০১৯ ভোরের পাতা নামে একটি পোর্টালে প্রকাশিত নিউজে উৎপল দাস নামের এক সাংবাদিকের লেখা নিউজে বিএম লিপি গোপনে বিয়ে করেছিলেন বলে জানান। একই সাথে তিনি লিপির কাবিন নামাও উল্লেখ করেছেন। কাবিননামায় উল্লেখিত তারিখ অনুযায়ী ১৬ মে ২০০৮ সালে লিপির শরীয়তপুরের জাজিরার একটি কাজী অফিসে গোপনে ফেনির দাগনভূইয়ার ছেলে মো. গোলাম মোরশেদকে বিবাহ করেন তিনি। জটলা বাধে এখানেই কারণ এখানে যে কাবিন নামা উল্লেখ করা হয়েছে সেখানে লেখা ‘মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন) বিধিমালা, ২০০৯ এর বিধি ২৮(১) (ক) অনুযায়ী বিবাহ ফরম। তার মানে ২০০৮ সালে তার বিবাহ হয়েছে ২০০৯ সালের বিবাহ ফরমে! কিভাবে সম্ভব!

বিএম লিপির সাথে যোগাযোগ করলে তিনি এটিই জানান এবং তিনি বলেন,‘ এটি সম্পূর্ণ মিথ্যা সংবাদ এবং বিবাহও মিথ্যা। আমাকে নিয়ে অপপ্রচার করার জন্যই এটি করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ‘এ নিয়ে নিউজ করে শুধু শুধু আপনার পত্রিকার কাগজ ফুড়াবেন। কেননা এখানে স্পষ্ট যে ২০০৮ সালে বিবাহ হয়েছে ২০০৯ সালের নিবন্ধন ফরমে। যা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

উল্লেখ্য, ১৩ মে ২০১৯ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর থেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে আসছিলেন বিএম লিপি। তিনি তার প্রাপ্ত পদে অসন্তোষ প্রকাশ করে অনশন কর্মসূচিতে যোগদান সহ একটি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে মাদকের সাথে জড়িত বলে মন্তব্য করেছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত