প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এক দশকে টিপি নিয়ে দেশে ঢুকেছেন সাড়ে ৫ লাখ, তা বন্ধের আদেশে সংশয়

ডেইলি স্টার বাংলা: যুদ্ধফেরত জঙ্গি ঠেকাতে ট্রাভেল পারমিট (টিপি) বন্ধ করছে বাংলাদেশ।

শরিফুল হাসান তার নিবন্ধে লিখেছেন, সাধারণত জরুরি প্রয়োজনে টিপি দেয়া হয়। প্রকৃতভাবে বাংলাদেশের কোনো নাগরিক বিদেশে গিয়ে পাসপোর্ট হারিয়ে ফেললে, চুরি হলে বা আগুনে পুড়ে গেলে বা পানিতে নষ্ট হলে সাধারণত টিপি দিয়ে একজনকে দেশে পাঠানো হয়।

পাসপোর্ট হারালে বা চুরি হলে অবশ্যই পুলিশে রিপোর্ট করতে হয়। এরপর টিপি পেতে নাগরিকত্ব প্রমাণে জন্মনিবন্ধন, জাতীয় পরিচয়পত্র এবং ভিসার কপি (যদি থাকে) জমা দিতে হয়। আর সব পেলে দূতাবাস দেশে পাঠিয়ে বা সম্ভব হলে সেখান থেকেই যাচাই-বাছাই করে টিপি দেয়। টিপি নিতে হলে নির্দিষ্ট ফি দিতে ও নিজে আসতে হয়। সেখানে ছবি থাকে, স্বাক্ষর থাকে। এরপর চলে যাচাই-বাছাই। দূতাবাস যখন শতভাগ নিশ্চিত হয় যে, লোকটি বাংলাদেশের নাগরিক, তখনই সাধারণত টিপি দেয়া হয়। এরপর সেই টিপি নিয়ে তিনি দেশে আসেন।

গত এক দশকে অন্তত সাড়ে পাঁচ লাখ লোক টিপি নিয়ে দেশে এসেছেন। বিমানবন্দরে প্রতিদিনই টিপিওয়ালাদের লাইন থাকে। মালয়েশিয়া, কাতার, আরব আমিরাত, মালদ্বীপ, বাহরাইনসহ বহু দেশ থেকে টিপি নিয়ে ফিরছেন বাংলাদেশিরা। এটি একটা আন্তর্জাতিক পন্থা। কী করে একটি দেশ টিপি বন্ধ করবে, সেটি কোটি টাকার প্রশ্ন।

সিরিয়া ও ইরাকে আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠীর পক্ষে যুদ্ধ করতে যাওয়া জঙ্গিরা যেনো বাংলাদেশে ঢুকতে না পারে, সেজন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যাচাই-বাছাই করে তবেই ট্রাভেল পাস দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটি যৌক্তিক। দেশের নিরাপত্তার স্বার্থেই এটি করা উচিত। কিন্তু, এখন যদি বলা হয়, টিপি বন্ধ, তাহলে কিন্তু ভয়ঙ্কর ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হবে। লাখ লাখ প্রবাসী ভয়াবহ দুশ্চিন্তায় পড়বেন।

প্রয়োজনে যাচাই-বাছাই ডিজিটাল করা যেতে পারে। আঙুলের ছাপসহ আধুনিক যেসব পদ্ধতি রয়েছে সেগুলো নিশ্চিত করা যেতে পারে। তাহলেই বিষয়টি নিয়ে কোনো ভুল বোঝাবুঝি হবে না।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের প্রধান মনিরুল ইসলাম বিষয়টি পরিষ্কার করে বলেছেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই জঙ্গিদের কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। তাই তারা যেকোনো দেশে ঢুকতে চাইলে ট্রাভেল পাস নিয়েই ঢোকার চেষ্টা করবে। অনেক সময় দেখা যায়, অবৈধ শ্রমিকদের দেশে ফেরাতে অনেকেই দ্রুত ট্রাভেল পাস চান। তাই শ্রমিক হিসেবে যেন জঙ্গিদের কেউ ট্রাভেল পাস নিয়ে চলে আসতে না পারেন, সেজন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যাচাই-বাছাই করে তবেই ট্রাভেল পাস দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাংলাদেশ থাকুক জঙ্গিমুক্ত।
সম্পাদনা: অশোকেশ রায়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ