প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টাঙ্গাইলে পুলিশি অভিযানের সময় এক ব্যক্তির মৃত্যু, এসআইসহ ছয় পুলিশ প্রত্যাহার

অলক কুমার দাস, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের গোপালপুরে তাসের আড্ডায় পুলিশি অভিযানের সময় একজন মৃত্যুবরণ করেছেন। পুলিশ ওই আড্ডাস্থল থেকে চারজনকে আটক করে। শুক্রবার বিকেলে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় এলাকাবাসী রাতে বিক্ষোভ মিছিল ও থানার সামনে জড়িত পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবিতে থানা অবরোধ করে রাখে। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে টাঙ্গাইালের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় ঘটনাস্থলে পৌঁছে এস আই আবু তাহের ও এএসআই আশরাফুল আলম এবং চার কন্সটেবলকে প্রত্যাহার করার ঘোষণা দিলে বিক্ষোভকারীরা শান্ত হন।

মৃত্যুবরণকারী ব্যক্তির নাম আব্দুল হাকিম (৫০)। তিনি ঝাওয়াইল গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে এবং পেশায় মাংস ব্যবসায়ী।

গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন জানান, ঝাওয়াইল ইউনিয়নের ঝাওয়াইল টেকটিক্যাল কলেজ মাঠে কিছু লোক টাকার বিনিময়ে তাস খেলছিল এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। এসময় সেখান থেকে চারজনকে আটক করা হয়। দু’জন দৌড়ে পালায়। আটককৃতদের নিয়ে পুলিশ চলে আসে। পরে খবর পাওয়া যায় যে দৌড়ে পালানো একজন মারা গেছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ পুলিশ একটি মাইক্রো নিয়ে সাদা পোশাকে সেখানে গিয়ে তাদের সবাইকে ধরে ফেলে। পরে প্রত্যেককে চরথাপ্পর মারে। এতে আব্দুল হাকিম অসুস্থ হয়ে ঢলে পড়ে। পরে পুলিশ তাকে ফেলে চারজনকে নিয়ে চলে যায়।

ঝাওয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিযে আব্দুল হাকিমকে মাঠে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে আরো কয়েকজনের সহায়তায় তিনি (চেয়ারম্যান) হাকিমকে গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

আব্দুল হাকিমের মৃত্যুর খবর এলাকায় পৌঁছার পর মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। ইফতারের পর কয়েকশ মানুষ গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে ভীড় করে। তারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। হাকিমের মৃত্যুর জন্য পুলিশদের দায়ি করেন এবং দোষী পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবি জানান। পরে পুলিশ সুপার এসআই আবু তাহের ও এএসআই আশরাফুল এবং চার পুলিশ কনস্টেবলকে গোপালপুর থানা থেকে টাঙ্গাইল পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করে নেয়ে হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত