প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কারাবন্দী পরিবহন ও যুবলীগ নেতার পক্ষে আইনি সহায়তার দাবিতে
ঈদের পরদিন থেকে বগুড়ায় যান চলাচল বন্ধের ঘোষণা

বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়া পরিবহন মালিক মলিক সমিতির অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও দু’পক্ষে বিবাদের জেরে বিশিষ্ট পরিবহন ব্যবসায়ী আইনজীবী ও বিএনপি নেতা শাহীন হত্যা মামলার ১নং আসামি যুবলীগ নেতা ও যৌথ কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ও জেলা মোটর মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক কারাবন্দি আমিনুল ইসলামকে আইনি সহায়তা প্রদান না করার সিদ্ধান্ত থেকে জেলা আইনজীবী সমিতি তাদের অবস্থান পরিবর্তন না করলে ঈদের পরদিন থেকে জেলায় বাস ও ট্রাকসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ( ২৩ মে) দুপুরে বগুড়া প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে বগুড়া জেলা সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক যৌথ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান আকন্দ এ ঘোষণা দেন।
এসময় বগুড়া জেলা মোটর মালিক গ্রুপের সভাপতি শাহ মো. আকতারুজ্জামান ডিউক, মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ছামছুদ্দিন শেখ হেলাল, ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল মান্নান মন্ডলসহ সড়ক পরিবহন-মালিক শ্রমিক যৌথ কমিটির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে আব্দুল মান্নান ঈদের পর দিন থেকে উত্তরাঞ্চলে গাড়ির চাকা বন্ধের ঘোষনা দিয়ে বলে, অ্যাডভোকেট শাহীন হত্যা মামলায় গ্রেফতার আমিনুল আইনি সহায়তা বঞ্চিত। কারণ আইনজীবী সমিতির সিদ্ধান্ত মতে কোন আইনজীবী তার পক্ষে আইনি লড়াই এর দায়িত্ব নিচ্ছে না বিধায় তার জামিন আবেদন শুনানি করা যাচ্ছে না। তিনি অভিযোগ করেন একজন আইনজীবী তার পক্ষে শুনানিতে অংশ নিতে চাইলেও কতিপয় আইনজীবী তাকে মারপিট করে আদালত থেকে বের করে দেয়।

বিষয়টিকে দুঃখজনক উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে আব্দুল মান্নান বলেন, প্রত্যেক মানুষের আইনি সহায়তা পাওয়ার অধিকার রয়েছে। বগুড়ার আইনজীবীরা যা করছেন তাতে আমরা মর্মাহত। পরিবহন মালিক শ্রমিকরা প্রতিনিয়ত আইনজীবীদের এমন আচরণ নিয়ে আমাদের কাছে প্রশ্ন করছেন। তাই যৌথ কমিটি জরুরি সভা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, আইনজীবী সমিতি যদি তাদের অন্যায় আচরণ থেকে নিজেদের সরিয়ে না নেন, তাহলে ঈদুল ফিতরের পরদিন থেকে বগুড়া জেলার বাস, ট্রাক, পিকআপ, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও প্রাইভেট গাড়ির শ্রমিকসহ কোনো মালিক রাস্তায় গাড়ি বের করবেন না। শ্রমিকরাও তাদের কর্মস্থলে যাবেন না।

তাদের ঘোষণা বাস্তবায়নে প্রশাসনসহ সবার সহযোগিতা কামনা করে মান্নান বলেন, অন্যথায় পরিবহন খাতে যেকোনো ধরনের অরাজকতা সৃষ্টি হলে তার দায় দায়িত্ব জেলা মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ নেবে না।

উলে­খ্য, বগুড়া জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য, বিশিষ্ট পরিবহন ব্যবসায়ী ও বিএনপি নেতা মাহবুব আলম শাহীন গত ১৪ এপ্রিল রাতে বগুড়ার উপশহর বাজার এলাকায় খুন হন। ওই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে নিহত শাহীনের স্ত্রী আকতার জাহান শিল্পী ১৬ এপ্রিল বগুড়া মোটর মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলামসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।আমিনূল সহ গ্রেপ্তার হয় মোট ৪ জন।

ওই মামলায় গ্রেপ্তারকৃতরা আদালতে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়ে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের পরদিন ১৫ এপ্রিল বগুড়া জেলা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম শাহীন হত্যাকাণ্ডে জড়িত কোনো আসামিকে সমিতির কোনো সদস্য আইনি সহায়তা দেবে না মর্মে সিদ্ধান্ত হয়। এ সিদ্ধান্তের কারণে অ্যাডভোকেট শাহীন হত্যা মামলায় গ্রেফতার প্রধান আসামি বগুড়া মোটর মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলামকে গ্রেফতারের পর একাধিকবার আদালতে নেয়া হলেও কোনো আইনজীবী তার পক্ষে দাঁড়াননি। ফলে ধার্য তারিখে আমিনুল নিজেই তার মামলার শুনানি করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত