প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ভারতে টিভি দেখার অভিজ্ঞতা জানতে ট্রাই, ২৬ দফা প্রশ্ন নিয়ে বাড়ি বাড়ি যাবে

শেখ নাঈমা জাবীন : টিভি দেখার ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম চালু হয়েছে ভারতে। কিন্তু তা ঠিকভাবে চালু করা নিয়ে এখনও নানা অভিযোগ রয়ে গিয়েছে দর্শকমহলে। পছন্দের চ্যানেল বাছাই পর্ব থেকে শুরু করে বিল পেমেন্টসহ নানা বিষয়ে ক্ষোভ জমছে তাঁদের মধ্যে। যাঁরা তাদের কাছে এই বিষয়ে অভিযোগ করেছেন, তাঁদের হয়ে ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী হয়েছিল ট্রাই। কিন্তু দপ্তরের কর্তাদের বক্তব্য, যেভাবে হাজারো অভিযোগ নিয়ে জেরবার তাঁরা, তাতে আদৌ ট্রাইয়ের নিয়ম ঘরে ঘরে ঠিকভাবে পালিত হয়েছে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে সর্বত্র। তাই পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এবার উদ্যোগী হল ট্রাই। ভারতের প্রতিটি রাজ্যে এই বিষয়ে বাড়ি বাড়ি সমীক্ষা চালাবে তারা। ট্রাইয়ের হয়ে সমীক্ষা করবে একাধিক বেসরকারি সমীক্ষাকারী সংস্থা। ২৬ দফা প্রশ্ন নিয়ে এবার দর্শকের কাছে পৌঁছবে ওই সংস্থাগুলি। বর্তমান

টিভি দেখা এবং তার খরচের স্বচ্ছতা আনতে নয়া নিয়ম চালু করে ট্রাই। ভারতে ২০১৭ সাল থেকে এই সংক্রান্ত নির্দেশিকা জারি হলেও, তা কার্যকর করা হয় স¤প্রতি। সেখানে ট্রাই সবচেয়ে বেশি যে বিষয়ে জোর দেয়, তা হল, দর্শক যে চ্যানেল দেখবেন, পয়সা মেটাবেন শুধু তার জন্য। টিভিতে একসঙ্গে প্রচুর চ্যানেল স¤প্রচার করা হয়। কিন্তু তার জন্য বড় অঙ্কের দাম দর্শকের থেকে নেওয়া চলবে না, এটাই জানায় তারা। দর্শক কোন চ্যানেল দেখবেন, তা যেমন তিনিই ঠিক করবেন, তেমনই সেইসব চ্যানেলের দাম কত, তাও জানাতে হবে চ্যানেল কর্তৃপক্ষ এবং কেবল সংস্থাকে, নির্দেশ দেয় ট্রাই। দর্শকের একটি অংশের অভিযোগ, তাঁদের পছন্দের চ্যানেল বাছাইয়ে এখনও স্বাধীনতা দিতে রাজি নয় কেবল সংস্থাগুলির একাংশ। তারা তাদের ইচ্ছামতো চ্যানেল নিতে একপ্রকার বাধ্য করছে দর্শকদের। অভিযোগ দায়ের হয় ট্রাই’য়েও। তারপরও একাধিক সংস্থাকে সেই সমস্যা মেটাতে নির্দেশ দেয় তারা। এমনকী নানাভাবে ট্রাইয়ের নিয়ম না মেনে চলায়, একাধিক ডিটিএইচ সংস্থাকে তা শুধরে নেওয়ার নির্দেশ দেয় তারা।

কিন্তু এত কিছুর পরেও আদৌ সুরাহা কতটা হল, তা সরেজমিনে দেখতে চায় ট্রাই। উল্লেখযোগ্য প্রশ্নগুলি হল, গ্রাহক তাঁর পছন্দের চ্যানেল বাছাই করতে পারছেন কি না, চ্যানেল পছন্দ করার প্রক্রিয়াটি সহজ বা গ্রাহক-বান্ধব কি না, সংশ্লিষ্ট সংস্থা চ্যানেল পছন্দ করার জন্য বিভিন্ন বিকল্প দিকগুলি সম্পর্কে গ্রাহককে অবগত করছে কি না, কতদিনে পছন্দের চ্যানেল চালু হয়েছে, পছন্দের চ্যানেল বদলাতে ইচ্ছা হলে, গ্রাহকের সেই ইচ্ছাকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে কি না, চ্যানেল বাতিল করা সম্ভব হচ্ছে কি না, ১০০টি ফ্রি টু এয়ার চ্যানেল বাছাইয়ের সুযোগ থাকছে কি না ইত্যাদি।

২৭ মে’র মধ্যে সমীক্ষাকারী সংস্থাগুলিকে নিয়োগ করার প্রক্রিয়া চ‚ড়ান্ত করার কথা। তারপরই দর্শকের কাছে পৌঁছবে সেই সমীক্ষাকারী দল। সম্পাদনা : কায়কোবাদ মিলন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত