প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এক চলন্ত সিঁড়ির ফুটওভার ব্রিজ মেরামত হলো বছরে ৩৬ বার!

সাজিয়া আক্তার : রাজাধানীতে মাত্র দুটি চলন্ত সিঁড়ির ফুট ওভার ব্রিজ রয়েছে। আর সেই আধুনিক চলন্ত সিঁড়ির ফুট ওভার ব্রিজের দুটোই সারা বছর মেরামত করতে হয়েছে। তাদের যেনো সারা বছরই অসুখ, আর সারা বছরই অসুস্থতা সারাতে চিকিৎসা করতে হয়। বাংলা নিউজ

গড়ে প্রতিটি ব্রিজ প্রতি মাসে ৩ বার করে মেরামত করতে হয়েছে। দুটি ব্রিজে এক বছরে ৭২ বার মেরামত করতে হয়েছে। আর এ জন্য ব্যয় হয়েছে প্রায় ৩০ লাখ টাকা। আর রক্ষণাবেক্ষণ করতে দুটি ব্রিজের জন্য খরচ হয়েছে ১৩ লাখ টাকা!

এভাবেই বছরে বিপুল অর্থ খরচ হচ্ছে চলন্ত সিঁড়ি মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য। আর এর ভেতরই আরো ৮৭টি নতুন চলন্ত সিঁড়ির ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হচ্ছে। দুটো ফুট ওভার ব্রিজই যেখানে ঠিক মতো পরিচালনা করতে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে নতুন করে আরো প্রকল্প নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে নর্দ্দা এলাকায় একটি ব্রিজ নির্মাণের কাজও শুরু হয়ে গেছে। এমন তথ্যই জানিয়েছে বনিক বার্তা পত্রিকা।

৭ কোটি ১৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৪ সালে চলন্ত সিঁড়িযুক্ত ২টি ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। এর একটি নির্মাণ করা হয় রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকায়। আরেকটি নির্মাণ করা হয় বনানীতে।

বিমানবন্দর রাস্তায় চলন্ত সিঁড়ির ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণে খরচ হয়েছে ৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা। আর বনানীর ফুট ওভার ব্রিজটিতে খরচ হয়েছে ৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। কিন্তু নির্মাণের পর এর মেরামত আর রক্ষণাবেক্ষণে খরচ হচ্ছে অনেক টাকা।

বার বার কেন নষ্ট হচ্ছে এর উত্তরে প্রকৌশলীরা জানিয়েছে, উন্নত দেশের ফুট ওভারব্রিজেও এ ধরনের চলন্ত সিঁড়ি যুক্ত করা হয়। তবে সেগুলো থাকে একটি টানেলের মধ্যে এবং পুরোটা এয়ারটাইট শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অবস্থায়। ফলে ওই চলন্ত সিঁড়িগুলোর মোটর বা বেল্টে কোনো প্রকার ধুলাবালি প্রবেশ করে না। কিন্তু আমাদের এখানে হয় উল্টোটা। মহাসড়কের পাশে খোলা পরিবেশে চলন্ত সিঁড়ি স্থাপন করা হয়েছে। নেই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থাও। ফলে রাস্তার ধুলাবালি, রোদের তাপ ও অতিরিক্ত ওজন বহন করায় দ্রুত নষ্ট হচ্ছে চলন্ত সিঁড়িগুলো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত