প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শিশু খাদ্যে ভেজাল ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি তৈরি, ‘রস’সহ ৭ প্রতিষ্ঠানকে ৩৭ লাখ টাকা জরিমানা

সুজন কৈরী : রাজধানীর কেরানীগঞ্জে দুইটি শিশু খাদ্য এবং জুস ও ড্রিংকস কারখানায় অভিযান চালিয়ে ২৬ লাখ টাকা জরিমানা করেছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়। র‌্যাব-১০ ও বিএসটিআইয়ের সহযোগিতায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলম। এছাড়া যাত্রাবাড়ীর ভাঙ্গাপ্রেস এলাকায় মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে রস মিষ্টান্নসহ তিন প্রতিষ্ঠানকে সাড়ে ৮ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

এদিকে পুরান ঢাকার আল রাজ্জাকসহ দুই প্রতিষ্ঠানকে আড়াই লাখ টাকা জরিমানা করেছে ডিএমপির ভ্রাম্যমাণ আদালত। র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম জানান, কেরানীগঞ্জ এলাকায় রহমত ফুড ও ইউকো ফুড প্রোডাক্টস নামক দুটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হয়। এ সময় ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান দিয়ে জুস, ডিংকস ও শিশুখাদ্য তৈরি ও বাজারজাত করায় রহমত ফুড প্রোডাক্টসকে ৬ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া কারখানাটি সিলগালা করা হয়েছে। একই অপরাধে ইউকো ফুড প্রোডাক্টসকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ঢাকা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মণ্ডল বলেন, রস নামিদামি একটি ব্র্যান্ড। কিন্তু এর কারখানায় স্বাস্থ্যসম্মত প্রক্রিয়ায় মিষ্টি তৈরি করা হয় না। অভিযানকালে দেখা গেছে, কারখানার মেঝেতে মিষ্টি খালি অবস্থায় রেখে দেয়া হয়েছে। ঘি তৈরির ক্রিমে ঘাস ফড়িং। নামিদামি এই প্রতিষ্ঠানের কারখানা মাছিতে ভরা। এক মাস আগের মিষ্টিও সংরক্ষণ করে ফ্রিজে রাখা হয়েছে। এছাড়া অগ্রিম উৎপাদনের তারিখও দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এসব অভিযোগে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন-২০০৯ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, একটি নামিদামি প্রতষ্ঠান হওয়ায় তাদের প্রতি ভোক্তাদের প্রত্যাশা অনেক। তবে তারা যে পরিবেশে মিষ্টান্ন তৈরি করছে তা তাদের ব্র্যান্ডের সঙ্গে মানায় না। এজন্য কারখানার মান যথাযথ করতে প্রতিষ্ঠানটিকে সতর্ক করা হয়েছে। আবারো এ ধরনের অপরাধ করলে আইন অনুযায়ী বড় অংকের জরিমানাসহ কারখানা সিলগালা করে দেয়া হবে।

আব্দুল জব্বার বলেন, পৃথক অভিযানে কোনাপাড়ায় কুমিল্লা মিষ্টান্ন ভান্ডারকে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি উৎপাদন ও পক্রিয়াকরণের অপরাধে ৫০ হাজার টাকা জরিমানাসহ সাময়িকভাবে কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া অবৈধ প্রক্রিয়ায় মশার কয়েল উৎপাদন ও প্রক্রিয়াকরণের অপরাধে এ্যাটাক কিং নামক মশার কয়েল প্রস্তুতকারী কারখানাকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে পুরান ঢাকার বংশাল ও নবাবপুরে খাদ্যে ভেজালবিরোধী অভিযান চালিয়েছে ডিএমপির ভ্রাম্যমাণ আদালত। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে ডিবি ও ক্রাইম বিভাগের সমন্বয়ে অভিযানটি চালানো হয়। অভিযানকালে পঁচা-বাসি খাবার রাখা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরির অভিযোগে বংশালের নর্থ সাউথ রোডের আল রাজ্জাক রেস্টুরেন্টকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া একই অভিযোগে নবাবপুর রোডের ডিসেন্ট পেস্ট্রি সপকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ