প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ছাত্রলীগ নেত্রীর আত্মহত্যা চেষ্টা, লিখিত জবাব দিবেন অভিযুক্ত দু’জন

মুহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন, ঢাবি : সোমবার (২০ মে ২০১৯) রাতে ছাত্রলীগের ৫ জনকে বহিষ্কার করা হয় এবং ২জনের বিরুদ্ধে কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে না তার লিখিত জবাব চাওয়া হয়। এর মধ্যে বহিষ্কার হয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য জেরিন দিয়া আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তবে এখন তিনি শঙ্কামুক্ত।

জানা যায়, সোমবার ছাত্রলীগের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ১ জনকে স্থায়ী বহিষ্কার এবং ৪ জনকে সাময়িকভাবে বহিষ্কারের কথা জানানোর পর ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাবেক সদস্য জেরিন দিয়া অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা চেষ্টা করেন। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে শঙ্কামুক্ত হওয়ার পরে ঢাকা ইউনিভার্সিটি মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে আসা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তির ভিত্তিতে স্থায়ীভাবে বহিষ্কৃত হলেন- জিয়া হল ছাত্রলীগের কর্মী সালমান সাদিক। আর সামিয়কভাবে বহিষ্কৃতরা হলেন- বিজ্ঞান অনুষদ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী মুরসালিন, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী সাজ্জাদুল কবির এবং সদস্য কাজী সিয়াম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাবেক সদস্য জেরিন দিয়া।

এছাড়া বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বিএম লিপি আক্তার(সভাপতি, রোকেয়া হল ছাত্রলীগ) এবং হাসিবুর রহমান শান্ত (পরিকল্পনা ও কর্মসূচি বিষয়ক সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল, ছাত্রলীগ) আপনাদের বিরুদ্ধে কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তার লিখিত জবাব আগামী তিন (০৩) কার্য দিবসের মধ্যে দপ্তর সেলে জমা দেয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হল।

অভিযোগপত্রের লিখিত জবাব দিবেন কিনা জানতে চাইলে এ বিষয়ে রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সভাপতি বি.এম লিপি বলেন, ‘আমি অবশ্যই আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের জবাব দিতে লিখিত জবাব দিব। আমি শুধু মধুর ক্যান্টিনে মারামারির সময় দাঁড়িয়ে ছিলাম। ওখানে থাকার আমার ছবি রয়েছে তাই আমার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা কেন নেয়া হবে না জানতে চাওয়া হয়েছে। আমি অবশ্যই এর জবাব দিব।’

মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল ছাত্রলীগের পরিকল্পনা ও কর্মসূচি বিষয়ক সম্পাদক হাসিবুল ইসলাম শান্ত বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণ করতে আমি লিখিত জবাব দিব, যেহেতু আমি মারামারির সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম না।

তিনি আরো বলেন, ‘কেউ যদি মারামারি করার প্রমাণ দিতে পারে তবে আমি স্বেচ্ছায় ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার হব। আমি শুধু পরিবেশ শান্ত রাখার জন্য ঐ স্লোগান দিয়েছিলাম।’

উল্লেখ্য, ১৩ মে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর পদবঞ্চিতরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করলে সেখানে হামলা হয়। হামলায় প্রায় ১৫ জন ছাত্রলীগের নেতাকর্মী আহত হন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত