প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

বিজেপি নেত্রী প্রজ্ঞাকে ভোট দিতে বারণ করে ট্রোলড ফারহান

মুসফিরাহ হাবীব : ভারতের ভোপালে ষষ্ঠ দফার লোকসভা ভোটপর্বে সাত দিন আগে গত ১২ মে ভোট হয়ে গেলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় তীব্র কটাক্ষের মুখে পড়তে হয়েছে বলিউড অভিনেতা ফারহান আখতারকে। ভুল না বললেও কথাটা একটু দেরিতে বলায় স্যোশাল মিডিয়ায় ব্যঙ্গ-বিদ্রুপের শিকার হয়েছেন তিনি। মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে নিয়ে মন্তব্যের প্রেক্ষিতে ভোপাল লোকসভা আসনে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) প্রার্থী সাধ্বী প্রজ্ঞা সিংহ ঠাকুরকে ভোট না দেওয়ার জন্য রোববার টুইট করেন ফারহান।

গডসেকে নিয়ে দক্ষিণের অভিনেতা ও রাজনীতিবিদ কমল হাসানের সমালোচনার জবাব দিতে গিয়ে প্রজ্ঞা বলেছিলেন, ‘নাথুরাম গডসে দেশপ্রেমিক ছিলেন, দেশপ্রেমিক আছেন এবং দেশপ্রেমিকই থাকবেন।’

সম্প্রতি নাথুরাম গডসেকে নিয়ে কমল হাসান বলেছিলেন, ‘ভারতের প্রথম উগ্রপন্থি একজন হিন্দুই ছিলেন। তিনি মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসে।’ সে বিষয়টি নিয়ে ভারতের মাটিতে ‘হিন্দু সন্ত্রাস’ বিষয়ে প্রজ্ঞাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি ওই বিতর্কিত মন্তব্য করে বসেন। এর প্রেক্ষিতেই টুইটে ফারহান লেখেন, ‘প্রজ্ঞাকে ভোট না দেওয়ার জন্য আমি ভোপালের ভোটারদের অনুরোধ জানাচ্ছি। প্রিয় ভোটার, আপনারা ভোপাল শহরে সেই গ্যাস দুর্ঘটনার মতো ঘটনাকে (১৯৮৪ সালের ভোপাল গ্যাস দুর্ঘটনা) আর ফিরিয়ে আনবেন না।’ টুইটে ফারহান কয়েকটি হ্যাশট্যাগও দেন- #সেনোটুপ্রজ্ঞা, #সেনোটুগডসে, #রিমেম্বারদ্যমহাত্মা এবং #চুজলাভনটহেট।

এরপরই ব্যঙ্গ-বিদ্রুপের ঝড় বয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। একজন লেখেন, ‘স্যর, আপনি একটু দেরি করে ফেলেছেন। ভোপালে ভোট হয়ে গিয়েছে ১২ মে। আপনি বরং পঞ্জাবের ভোটারদের কাছে আবেদন জানান, যাতে তারা শিখ গণহত্যার স্মৃতি না ফিরিয়ে আনেন।’ আর একজন টুইটে লেখেন, ‘আপনার ইন্টারনেট কানেকশানটা এখনই বদলে ফেলুন। আপনার টুইটগুলি ১০ দিন পর সবাই জানতে পারছেন।’ উল্লেখ্য, ভোপালে বিজেপি প্রার্থী প্রজ্ঞার বিরুদ্ধে কংগ্রেস প্রার্থী হন মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিংহ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত