প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঈদে ঢাকা থেকে বরিশালের ছয় জেলায় চলবে ৫২ লঞ্চ

নিউজ ডেস্ক : ঈদে ঘরমুখো মানুষের জন্য নৌপথে বিশেষ সার্ভিস আগামী ২ জুন থেকে শুরু হতে পারে। ৩০ মে সরকারি শেষ কর্ম দিবসের পর টানা ৯ দিনের ছুটি শুরু হবে ৩১ মে থেকে। তবে ১ জুন শবেকদরের নামাজ শেষে পরেরদিন বিশেষ সার্ভিস শুরুর পরিকল্পনা করছে নৌযান সংশ্নিষ্টরা। এ লক্ষ্যে নৌযান সংশ্নিষ্ট মালিক সংগঠনগুলো যাবতীয় প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এবার ঢাকা থেকে বরিশাল বিভাগের ছয়টি জেলা শহরে মোট ৫২টি নৌযান যাত্রীপরিবহন করবে বলে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) সূত্রে জানা গেছে। যার মধ্যে ঢাকা-বরিশাল রুটে সর্বাধিক ২৩টি লঞ্চ চলবে। সমকাল।

বেসরকারি লঞ্চ মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌযান পরিবহন (যাত্রী) সংস্থার ঢাকা-বরিশাল রুট কমিটির সদস্য সচিব সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী গতকাল বিকেলে সমকালকে জানান, ঈদ উপলক্ষে বিশেষ সার্ভিস শুরুর দিন চূড়ান্ত করতে

আজ শনিবার ঢাকায় লঞ্চ মালিকদের সভা হওয়ার কথা রয়েছে। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সদস্য ও ঢাকা-বরিশাল রুটের সুন্দরবন লঞ্চ কোম্পানির মালিক সাইদুর রহমান রিন্টু জানান, সরকারি ছুটি ৩১ মে থেকে শুরু হলেও নৌযানের বিশেষ সার্ভিস ২ জুন থেকে শুরুর সম্ভাবনা বেশি। আজ সংগঠনের সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

অন্যদিকে রাষ্ট্রীয় নৌযান সংস্থা বিআইডব্লিউটিসির বরিশালের উপ-মহাব্যবস্থাপক সৈয়দ আবুল কালাম আজাদ জানান, বিআইডব্লিউটিসির বিশেষ সার্ভিস শুরু হবে শবেকদরের পর। সে হিসাবে ২ অথবা ৩ জুন থেকে বিআইডব্লিউটিসির বিশেষ সার্ভিস শুরু হতে পারে।

তিনি জানান, বিআইডব্লিটিসির পাঁচটি জাহাজের মধ্যে এমভি মাসুদ বিকল হয়ে নারায়ণগঞ্জ ডর্কইয়ার্ডে রয়েছে। ঈদের আগে জাহাজটি সচল করে সার্ভিসে নামানোর সম্ভাবনা আছে।

বিআইডব্লিউটিএর বরিশালের ট্রাফিক পরিদর্শক (টিআই) কবির হোসেন জানান, বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটে বর্তমানে দিবা সার্ভিসসহ মোট ২১টি বেসরকারি লঞ্চ চলাচল করছে। ঈদের আগে এ বহরে আরও দুটি নৌযান যুক্ত হবে। রোটেশন অনুযায়ী বর্তমানে প্রতিদিন ঢাকা ও বরিশাল থেকে ৮ থেকে ১০টি করে বিপরীত গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছে। ঈদের বিশেষ সার্ভিস চলাকালে এই লঞ্চগুলো ডাবল ট্রিপ দেবে।

এ ছাড়া ঢাকা-ভোলা এবং ঢাকা-পটুয়াখালী রুটে চলবে ৮টি করে লঞ্চ। ঝালকাঠি, পিরোজপুর ও বরগুনা রুটের মোট ১৩টি লঞ্চ বরিশাল হয়ে ঢাকা রুটে যাতায়াত করবে।

টিআই কবির হোসেন আরও জানান, ঈদ সার্ভিসে এমভি কীর্তনখোলা গ্রুপের দুটি, অ্যাডভেঞ্চার গ্রুপের তিনটি, এমভি সুন্দরবন গ্রুপের তিনটি, এমভি সুরভী গ্রুপের তিনটি, এমভি পারাবত গ্রুপের পাঁচটি, গ্রিন লাইন কোম্পানির দুটি, এমভি কামাল কোম্পানির দুটি, এমভি মানামী, এমভি টিপু-৭ ও এমভি ফারহান-৮ বরিশাল-ঢাকা রুটে সরাসরি যাত্রী সেবা দেবে। এর মধ্যে গ্রিনলাইনের দুটি ও অ্যাডভেঞ্চার কোম্পানির একটি দিবা সার্ভিসে থাকবে।
##
আহমেদ শাহেদ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত