প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ভিয়েনায় শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

আনিসুল হক, ভিয়েনা (অষ্ট্রিয়া) থেকে: প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ৩৯তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে অষ্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার রেনভিইউ হলে ১৭ মে বিকেলে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম। পরিচালনা করেন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি, অষ্ট্রিয়া প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী, লেখক, সাংবাদিক এম. নজরুল ইসলাম।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আকতার হোসেন, এ কে এম সওকত আলী, রুহি দাস সাহা, এমরান হোসেন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহ কামাল, সাংগঠনিক সম্পাদক নয়ন হোসেন, লুৎফর রহমান সুজন, অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগ নেতা সাইফুল ইসলাম জসিম, মজনু আজাদ, দিদারুল আলম, অস্ট্রিয়া আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক ইয়াসিম মিয়া বাবু, সদস্য সচিব সাঈদ শেখ প্রমুখ।

প্রধান অতিথি এম. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আকস্মিক বঙ্গবন্ধু হত্যার ঘটনায় দিশেহারা হয়ে পড়ে জাতি। রাজনীতি হয়ে যায় গৃহবন্দি। প্রকাশ্য সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ। সান্ধ্য আইনের ঘেরাটোপে বন্দি অদ্ভুত এক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা চালু হয় দেশে। প্রাণ খুলে কথা বলার উপায় ছিল না। অপহরণ করা হয় মুক্তবুদ্ধির চর্চার স্বাধীনতা। সেই অবরুদ্ধ দিনের অর্গল খুলে যাওয়ার দিন ১৯৮১ সালের ১৭ মে।’ তিনি বলেন, ‘মানুষের প্রাণের আকুতি ভাগাভাগি করে দেওয়ার এই দিনটি বাঙালির কাছে বিশেষভাবে স্মরণীয়। সর্বস্বহারা এক নারী আজকের এই দিনে খুঁজে পেয়েছিলেন তাঁর আত্বিক স্বজন। দিশেহারা বাঙালি জাতি আজকের এই দিনেই খুঁজে পায় নতুন নেতৃত্ব, আস্থা ও বিশ্বাস’

সভাপতির বক্তব্যে খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম বলেন, ‘১৯৮১ সালের ১৭ মে যদি শেখ হাসিনা দেশে না ফিরতেন তাহলে বাংলাদেশ এতদিনে পাকিস্তানের অঙ্গরাজ্যে পরিণত হতো।’

সাইফুল ইসলাম কবির বলেন, ‘খালেদা জিয়ারা শত চেষ্টা করেও দেশ এবং মানুষের কল্যণে জননেত্রী শেখ হাসিনার অগ্রযাত্রাকে ঠেকাতে পারে নাই, পারবেও না।’

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে জননেত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত