প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশ ও ভারতে মৃত্যুর দশটি কারণের একটি ডায়াবেটিস

মঈন মোশাররফ : আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন বা আইডিএফ-এর বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এশিয়ায় যাদের ডায়াবেটিস আছে, তাদের অর্ধেকেরও বেশি মানুষ জানেন না যে, তারা এই রোগে ভুগছেন।

শরীরে ডায়াবেটিস রোগের উপস্থিতি সম্পর্কে না জানা এবং সে কারণে তার চিকিৎসা না করা প্রাণঘাতী হতে পারে বলে জানিয়েছে আইডিএফ। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ও ভারতে মানুষের মৃত্যুর দশটি কারণের একটি হয়ে উঠেছে ডায়াবেটিস। ডায়াবেটিস একটি ‘নীরব’ রোগ। তৃষ্ণা কিংবা ক্লান্তির মতো লক্ষণ যে দেখা দেবেই, বিষয়টি তেমন নয়। ডয়চে ভেলেকে বলেন ভারতের ক্যাথলিক হেলথ অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়ার চিকিৎসক সমীর বালাশংকার চিকিৎসক সমীর বালাশংকর বলেন, ভারতীয়রা ইদানীং হাঁটাচলা কম করে আর প্রক্রিয়াজাত খাবার বেশি খাচ্ছে। শহরের মানুষ সবজি, ফলমূল কম খাচ্ছেন । এর পরিবর্তে প্রক্রিয়াজাত খাবার, যেমন ‘ম্যাগি’ নুডুলস বেশি খাচ্ছে। কারণ, এই নুডুলস দ্রুত রান্না করা যায় এবং এটা সব জায়গায় পাওয়া যায় । দামেও সস্তা । যেমন ভারতে বর্তমানে এক কেজি টমেটোর দাম প্রায় ৪০ রূপি। সেখানে এক প্যাকেট নুডুলসের দাম মাত্র ১০ রূপি । ফলে গরিব মানুষরা এর প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছেন। অনেক শিশু দিনে দুই/তিনবার ইনস্ট্যান্ট নুডুলস খাচ্ছে।

বর্তমানে বাংলাদেশে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা প্রায় এক কোটি দশ লক্ষ। ২০৪৫ সালের মধ্যে সংখ্যাটি এক-তৃতীয়াংশ বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশের গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এর জন্য ‘খাদ্যাভ্যাস, অনুশীলনের অভাব ও ধ‚মপানকে দায়ী করছেন।

তিনি বলেন, গ্রামাঞ্চলে মানুষ এখন বেশি মাছ খেতে পান না, কারণ মাছ বিক্রির বিনিময়ে তাদের অন্য খাবারের সংস্থান করতে হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন বা আইডিএফ বলছে, ভারতের ৮ দশমিক ৮ শতাংশ মানুষের এই রোগ আছে। সংখ্যার হিসেবে তা প্রায় সাড়ে এগারো কোটি । চীনের পরে ভারতেই ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত