প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর শেখ হাসিনা বিদেশে ও পরে দেশে ফিরেও উদ্বাস্তুর মতো বাস করেছেন

দেবদুলাল মুন্না: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ডের পর প্রায় ছয় বছর নির্বাসিত জীবন কাটিয়ে ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফেরেন তার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা।১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যেদিন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়, শেখ হাসিনা তখন তার ছোট বোন শেখ রেহানা, স্বামী ও দুই সন্তানসহ তখনকার পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করছিলেন। ফলে তারা প্রাণে বেঁচে যান।পশ্চিম জার্মানি থেকেই স্ত্রী শেখ হাসিনা, শ্যালিকা শেখ রেহানা এবং শিশু পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ও শিশু কন্য সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা এবং প্রাণ রক্ষার জন্য ভারত সরকারের কাছে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়া।সেই কঠিন সময়ে তাদের হাতে যথেষ্ট টাকা ছিল না। শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানা মাত্র ২৫ ডলার সঙ্গে নিয়ে দেশ থেকে জার্মানি গিয়েছিলেন।২৪ অগাস্ট সকালে ভারতীয় দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা তাদের ফ্রাঙ্কফুর্ট বিমানবন্দরে নিয়ে যান। তবে তাদের যাত্রার বিষয়টি সে সময় গোপন রাখা হয়।এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে ২৫ অগাস্ট সকালে দিল্লি পৌঁছান শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, ওয়াজেদ মিয়া এবং তাদের দুই সন্তান।এরপর ভারতের দিল্লির ডিফেন্স কলোনির একটি বাসায় ছিল একটি ড্রয়িং-কাম-ডাইনিং রুম এবং দুটো বেডরুম।ভারতে তখন জরুরি অবস্থা চলছে। বাংলাদেশ সম্পর্কে তেমন কোনো খবরাখবর ভারতের পত্রিকায় ছাপা হচ্ছে না। কাজেই তখনকার বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে একরকম অন্ধকারে ছিলেন বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে।

দিল্লিতে পৌঁছানোর দুই সপ্তাহ পর শেখ হাসিনা ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেন।সেখানেই শেখ হাসিনা ১৫ অগাস্ট ঘটে যাওয়া পুরো ঘটনা জানতে পারেন।এরপর শেখ হাসিনাকে ইন্ডিয়া গেইটের কাছে পান্ডারা পার্কের ‘সি’ ব্লকে একটি ফ্ল্যাট দেওয়া হয়।সেসময় আওয়ামী লীগ নেতা জিল্লুর রহমান, আব্দুস সামাদ আজাদ, তৎকালীন যুবলীগ নেতা আমির হোসেন আমু, আওয়ামী লীগের তৎকালীন যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী দিল্লি গিয়ে গিয়ে শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব অনুরোধ করেন।১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়।একই বছরের ১৭ মে দেশে ফিরেন। ১৬ মে শেখ হাসিনা ও তার মেয়ে দিল্লি থেকে একটি ফ্লাইটে কলকাতা পৌঁছান। ১৭ মে বিকালে তারা কলকাতা থেকে ঢাকায় পৌঁছান। তাদের সঙ্গে ছিলেন আব্দুস সামাদ আজাদ ও এম কোরবান আলী।সেদিন প্রতিকূল আবহাওয়া উপেক্ষা করে হাজার হাজার জনতা জড়ো হয়েছিলো তেজগাঁওয়ের পুরনো বিমানবন্দরে।

বিমানবন্দরের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখার পর শেখ হাসিনাকে নিয়ে যাওয়া হয় মানিক মিয়া এভিনিউয়ে। সেখানকার সমাবেশে শেখ হাসিনা বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে বলেছিলেন,‘সব হারিয়ে আমি আপনাদের মাঝে এসেছি। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে তার আদর্শ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে জাতির জনকের হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণে আমি জীবন উৎসর্গ করতে চাই।’ (তথ্যসূত্র: এম এ ওয়াজেদ মিয়ার বই ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ঘিরে কিছু ঘটনা ও বাংলাদেশ’)।সেদিন দেশে ফেরার পর শেখ হাসিনাকে প্রকৃত অর্থেই একজন শরণার্থীর মতোন বাস করতে হয়েছিল।তাকে ঢাকা শহরে বিভিন্ন আত্মীয় স্বজন , শুভাকাক্ষীর বাসায় পালাক্রমে থাকতে হয়েছে। প্রথম কয়েকদিন থাকেন শেখ জামালের শ্বশুর সৈয়দ হোসেনের লাল মাটিয়ার বাসায়।এরপর ছিলেন শেখ সেলিমের বনানীর বাসায়। মোহাম্মদপুরের বাবর রোডের জনৈকা সেলিমাখালার বাসা ও ধানমন্ডির ‘জলি খালা’র বাসায় ছিলেন।কলাবাগানে বঙ্গুবন্ধু পরিবারের পারিবারিক চিকিৎসক ডা: এস এ মালিকের বাসা ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর বাসায় ছিলেন।

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান জানান,‘ ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের সেই বাড়িতেই তাঁকে জিয়া প্রবেশ করতে দেননি। নিহত পরিবারের সদস্যদের জন্য করতে পারেননি মোনাজাত বা আয়োজন করতে পারেননি কোনো দোয়া মাহফিলের। কিছু নিবেদিতপ্রাণ দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে সামনের রাস্তায় বসে মিলাদ পড়িয়েছিলেন।পরে অনেক দিন গেলে তাকে ধানমন্ডির ৩২ নাম্বারে থাকতে দেওয়া হয়।’

সরকারের তথ্য অধিদপ্তরের সাইটের বরাতে জানা যায়,১৯৮৩ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি সামরিক সরকার তাঁকে আটক করে ১৫ দিন অন্তরীণ রাখে তৎকালীন সরকার। ১৯৮৪ সালের ফেব্রুয়ারি এবং নভেম্বর মাসে তাঁকে দু’বার গৃহবন্দী করা হয়। ১৯৮৫ সালের ২রা মার্চ তাঁকে আটক করে প্রায় ৩ মাস গৃহবন্দী করে রাখা হয়। ১৯৮৬ সালের ১৫ অক্টোবর থেকে তিনি ১৫ দিন গৃহবন্দী ছিলেন। ১৯৮৭ সালে ১১ নভেম্বর তাঁকে গ্রেফতার করে এক মাস অন্তরীণ রাখা হয়। ১৯৮৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি শেখ হাসিনা গ্রেফতার হয়ে গৃহবন্দী হন। ১৯৯০ সালে ২৭ নভেম্বর শেখ হাসিনাকে বঙ্গবন্ধু ভবনে অন্তরীণ করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত