প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কোন উত্তাপের আগুন আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে কে জানে!

সৌমিত্র মিত্র : আমরা পিওর উত্তর কলকাতার মানুষ আর ঘটি। ৩শ বছরের বেশি আমাদের বাড়ি আর আমার নাতনি এই বাড়িতে অষ্টম প্রজন্ম। আমাদের পাড়ায় বড় রকওয়ালা অনেকগুলো বাড়ি। এই রকে সকালে দুধ আর বাজার করার মানুষের জটলা দুপুরে ফেরিওয়ালা আর রিকশাওয়ালাদের বিশ্রাম। বিকেল ৫টা নাগাদ আমাদের বাড়ির সেবক জল দিয়ে রক ধুয়ে দিত আর বিকেল সন্ধে আমাদের আড্ডা। সন্ধ্যার পর এই রক দখল করতেন পাড়ার বড়রা।

পাড়ার সকলকে মান্যতার নিরিখে কাকা-কাকীমা জেঠা জেঠিমা দাদা বৌদি বলতে হতো এবং এরা সবাই নির্বিবাদে কম বেশি শাসন করতেন। ভোট ছিলো উৎসব। প্রধানত জোড়া বলদ আর কাস্তে হাতুড়ির লড়াই। এই নির্বাচনে তেমন সংঘর্ষ চোখে পড়তো না। দু’একটা ছোটখাটো হাতাহাতি ছাড়া। ভোটের দিন লিলি বিস্কুট কোম্পানির বাড়িতে লুচি আলুর দম বোঁদে তৈরি হতো। দুপুরের খাবার। এই খাবার বিতরণে কোনো রং ছিলো না।

যেকোনো ভোট কর্মী সাগ্রহে খেতেন এবং ভোট কেমন হলো তা নিয়ে নির্ভেজাল গপ্পো করতেন। এইসব পুরোনো দিনের কথা লিখতে গিয়ে সুকান্ত ভট্টাচার্য’র কবিতা মনে পড়লো…উৎসব করো উৎসব করো, ভুলে যাও পেছনে আছে এক আগ্নেয় পাহাড় ভিসুভিয়াস ফুজিয়ামার জাগ্রত সহোদর! কোন উত্তাপের আগুন আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে কে জানে! ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত