প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দালালদের মিথ্যে স্বপ্নের আশ্বাসে অবৈধভাবে সাগর পাড়ি দিতে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল, বললেন নারী নেত্রী সুমাইয়া ইসলাম

কেএম নাহিদ : বাংলাদেশ নারী শ্রমীক কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক সুমাইয়া ইসলাম বলেন, মানুষ পাচারে বাংলাদেশের দালাল চক্র খুবই তৎপর। ভূমধ্যসাগরে বাংলাদেশী যুবকের করুণ মৃত্যু হলো তার সঙ্গে জড়িত শুধু দেশের দালাল চক্র নয় এর সঙ্গে আন্তজার্তিক দালাল চক্র জড়িত। দেশের কিছু প্রভাবশালি মহলের ও যোগসাজস ও সরকারিভাবে এই দূর্গম পথে বিদেশ যাওয়া রোধে সচেতনতার অভাব, এবং দালালদের বিচারে আওতায় না আনার কারণে মৃত্যুর মিছিল বাড়ছে। সোমবা বিবিসির সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন নারী নেত্রী।

তিনি বলেন, আমরা ২০১৫ সালেও দেখেছি, দেকনাফ দিয়ে অনেককে সাগর পাড়ি দিতে। দালালরা এসমস্ত রুটকে মানব পাচারের পথ হিসেবে বেছে নিয়েছে। আমি ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্য সাগর থেকে উদ্ধারকৃত, বেলাল এবং মাসুদের কথা বিবিসিতে শুনেছি। তারা বলেছে, দালালরা মাঠ পর্যায়ে ৯ লাখ টাকা করে নিয়ে ভূমধ্য সাগরে দিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। মানুষের জীবনের হুমকি সৃষ্টি করছে, মানুষ মারা যাচ্ছে। এটা থামানো যাচ্ছে না। এতো সহজে টাকার মালিক হওয়ার প্রবণতা। মানুষকে শোষণ করার প্রবণতা এবং সর্বপরি বিচারহীনতার কারণেই এসব ঘটছে। একটা পরিবারকে সর্বশান্ত করে, ৮, ১০ লাখ টাকার মালিক হওয় এদেশে অতি সহজে। যারা মরে যাচ্ছে তাদের কোন অভিযোগ নেই। কারণ গরিব মানুষ যখন টাকা দেয় কেনো প্রমাণ রাখে না। যখন মারা যাচ্ছে তখন সবাই জানছে।

তিনি বলেন, এ সমস্ত দালাল চক্রের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগের প্রমাণ করানো যাচ্ছে না। ফলে দিন দিন মানব পাচার বাড়ছে। আর তার সঙ্গে বাড়ছে অমানবিক মৃত্যুর মিছিল। তাই আমরা বাংলাদেশ নারী কল্যাণ ফেডারেশন থেকে মাঠ পর্যায়ের যতো নারী সংগঠন আছে, তারা দাবি করছি। এই সমস্ত দালাল চক্রকে আইনের আওতায় আনার। সরকারে শ্রম মন্ত্রনালয়,তথ্য মন্ত্রনালয়, প্রবাসি কল্যাণ মন্ত্রনালয় এই সমস্ত ব্যাপারে কেনো জনসচেতনা সৃষ্টি করতে পারেনি। এটা সরকারে ব্যর্থতা তারা সেভাবে প্রচার প্রচারণা করতে পারেনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত