প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নুসরাতের পর গত ১ মাসে ১০ মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ ও নির্যাতিত হয়েছে

মহসীন কবির : ফেনীর মাদ্রাসা ছাত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার পর আরও ১০ জন মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। দেশব্যাপী নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে সমাবেশ করেছে দেশের সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো। কিন্ত থেমে নেই নির্যাতন।
শিক্ষক ও পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কারণেই নিজ মাদ্রাসায় নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ভয় আর লজ্জায় নির্যাতনের তথ্য প্রকাশ না করায় চাপা পড়ে যায় সেসব ঘটনা। যেসব ঘটনা সামনে আসে প্রভাবশালীদের কারণে তাও একসময় চাপা পড়ে। এতে বেপরোয়া হয়ে ওঠে প্রতিষ্ঠানের হর্তাকর্তারা।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ১৫ বছরের মাদরাসাছাত্রীকে গত শুক্রবার রাতে ধর্ষণের পর হাত-পা ও মুখ বেঁধে নালায় ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। ১১ মে শনিবার সকালে মাঠে কাজ করতে যাওয়া স্থানীয় কৃষকরা তাকে উদ্ধার করে। কিশোরীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য জেলার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

০৬ মে কুমিল্লার হোমনায় দিনের বেলায় নবম শ্রেণীর মাদ্রাসাছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে ৮ মামলার আসামি সুমন সরকার। ৩ মে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে ভংগারচর গ্রামের রজ্জব আলী মাস্টারের বাগানে মেয়েটি ধর্ষিত হয়। সুমন সরকার মাথাভাঙ্গা ইউনিয়নের দ্বাড়িগাঁও গ্রামের রেজাউল করিম ওরফে রাজা মিয়ার ছেলে। মেয়েটির বাবা সুমনকে আসামি করে শনিবার রাতে হোমনা থানায় মামলা করেন।

সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরে মাদ্রাসাছাত্রীকে যৌন হয়রানির ঘটনা ধামাচাপা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন সেই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মতিউর রহমান। চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর যৌন হয়রানির শিকার সপ্তম শ্রেণীতে পড়ুয়া উপজেলার দিঘিরপাড় দাখিল মাদ্রাসাছাত্রীর পরিবার বিচার চাইতে গিয়ে এখন উল্টো অধ্যক্ষের রোষানলে পড়েছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। যৌন হয়রানির ঘটনাটি জানাজানি হওয়ায় এলাকার লোকজন ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে। ছাত্রীর পরিবার জানায়, মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী বিল্লাল হোসেন একই মাদ্রাসায় সপ্তম শ্রেণীতে পড়ুয়া তাদের মেয়েকে ২৪ এপ্রিল বই দেয়ার কথা বলে লাইব্রেরি কক্ষে নিয়ে যৌন হয়রানি করে।

শার্শায় পঞ্চম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে। ৩০ এপ্রিল মঙ্গলবার ওই ছাত্রীর বাবা এ অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ঘটনা তদন্তে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য ডাক্তার নূরুল ইসলামকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ।

শ্রীবরদীতে অটোরিকশা চালকের বিরুদ্ধে এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্তের নাম উজ্জ্বল মিয়া (৪০)। তিনি উপজেলার শংকরঘোষ গ্রামের বাসিন্দা। ধর্ষণের শিকার ছাত্রীটি উপজেলার একটি মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। ১ মে বুধবার দুপুরে শ্রীবরদী উপজেলার শংকরঘোষ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

২৮ এপ্রিল শনিবার মারজানা বেগম নামে পঞ্চম শ্রেণীর এক মাদ্রাসাছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সে কেওলাকান্দি গ্রামের মো. লিয়াকত আলীর মেয়ে। মারজানার মা সেলিনা বেগম জানান, মারজানা গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তবে যে রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে, সেই রশি ছিড়ে মেঝেতে পড়ে যায়।

খাগড়াছড়ির রামগড়ে মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিশু শিক্ষার্থী (১১) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। শুক্রবার ২৬ এপ্রিল রাতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ধর্ষক যুবককে আটক করেছে। পুলিশ ও ভিকটিমের পরিবার জানায়, রামগড় পৌরসভার দারোগাপাড়ার বাসিন্দা ১১ বছরের ঐ শিশু কন্যা তাদের এক প্রতিবেশীর সঙ্গে শুক্রবার রাতে পার্শ্ববর্তী ফেনী নদীতে মাছ ধরতে যায়। এ সময় (রাত ৮টার দিকে) বাবলু (৩১) নামে এক যুবক ঐ মেয়েটিকে মহামুনি এলাকায় নদীর চরে ধর্ষণ করে।

বাগেরহাটের রামপালে এগারো বছর বয়সী এক মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের মামলায় অধ্যক্ষ ওলিয়ার রহমানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে উপজেলার শরাফপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। এনিয়ে পুলিশ দুই আসামিকে গ্রেফতার করলো। গ্রেফতার ওলিয়ার রহমান স্থানীয় শরাফপুর ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এবং ফেরদৌস শেখ রামপাল উপজেলার শরাফপুর গ্রামের লুত্ফর শেখের ছেলে। ২১ এপ্রিল শনিবার এ ঘটনা ঘটে।

বগুড়ার নন্দীগ্রামে এক মাদ্রাসার ছাত্রীকে (৯) ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে তার পরিবার। এ ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে ঘটনার সঙ্গে জড়িতরা। ২৩ এপ্রিল মঙ্গলবার রাতে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে উপজেলা সদর ইউনিয়নের রনবাঘা কৈগাড়ী গ্রামের কাওছার আলী (১৯) ও হাসু মিয়া (২২) নামে দুইজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

বরিশালে ছাত্রী নির্যাতনের অভিযোগে মাদ্রাসা অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ১৪ এপ্রিল শনিবার মাদ্রাসাছাত্রী আয়শা ছিদ্দিকাকে (১৪) নির্যাতন করা হয়েছে বলে তার অভিভাবকরা অভিযোগ করেছেন। সে নগরীর রূপাতলী এলাকায় আশরাফুন্নেছা বালিকা হাফিজি মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্রী। নির্যাতনের শিকার ছাত্রীর মা নিলুফা বেগম রোববার রাতে মামলা করার পর তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত