প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিদ্যমান আইনে রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য জানতে চাইলে, রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের ভাগ্য বরণ অসম্ভব নয়, বললেন রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ

কেএম নাহিদ : সিনিয়র সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, মায়ানমারে রয়টার্সের  দুই সাংবাদিককে মুক্তি দেয়া হলেও তা প্রচলিত আইন নয়। সে দেশের প্রেসিডেন্ট মার্সিতে তারা মুক্তি পায়। এই আইনটি এতোই খারাপ আইনি কেনো প্রতিকার পাওয়া সম্ভব না। যদি সরকার কেনো ইচ্ছা না করে। এতেই বোঝা গেলো মায়ানমারে কোনো গণতন্ত্র নেই । ডিজিটাল সিকিউরিটি এ্যাক্ট আছে রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য জানা যাবে না তাতে রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের ভাগ্য বরণ হতে পারে। বুধবার ভয়েস অব আমেরিকার সঙ্গে সাক্ষাতকারে তিনি এসব বলেন

তিনি বলেন, অফিসিয়াল সিক্রেট এ্যাক্ট ১৯২৩ তে ইংরেজরা এই আইন চালু করেন। সত্য কেনো অবস্থায় মানুষ জানুক তারা চাইতো না। শাসন আমলে তারা চাইতো সত্য গোপন করতে। এখন এই আইনটিকে বলা হয় রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য। সব তথ্যই রাষ্ট্রীয়। এই আইন থাকলে সাংবাদিকতা আর করা যাবে না । এই আইনটি আনফরচুনেটলি বাংলাদেশে ছিলো। এই আইনকে আবার ডিজিটাল সিকিউরিটি এ্যাক্ট নামে নতুন করে করা হয়েছে। তাই রাষ্ট্রীয় কেনো গোপন সংগ্রহ তথ্য অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে। সরকারি কেনো তথ্য জানতে চাইলো, তা রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য জানতে চাওয়া হবে, এবং রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের ভাগ্য বরণ করতে হবে। আরো খারাপ ভাগ্য বরণও করতে হতে পারে। তাদের সাত বছর জেল হয়েছিলো এখানে ১৪ বছর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত