প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতে সংখ্যার তুলনায় পার্লামেন্টে মুসলিমদের প্রতিনিধিত্ব কম

নাঈম কামাল : ভারতের মুসলিম গোষ্ঠীর অনুপাতে পার্লামেন্টে মুসলিম এমপি’র সংখ্যা বরাবরই খুব কম। মুম্বাই শহরে ৫০ লক্ষ মুসলিমের বসবাস। যা এই শহরের ২০ ভাগেরও বেশি। এরপরেও এখান থেকে নির্বাচিত হননি কোন মুসলিম এমপি।

অন্যভাবে বললে, ভারতের জনসংখ্যার প্রায় পনেরো শতাংশ মুসলিম। অথচ তারা পার্লামেন্টে তিন শতাংশ এমপি পাঠাতে পারেননি। মুসলিম ধর্মের এমপিরা সংখ্যায় কম হওয়ার ফলে ভারতের মুসলিম সমাজকেই বা কী ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে?
টাটা ইনস্টিটিউট অব সোস্যাল সাইন্সেস’র অধ্যাপক পিকে শাহজাহান বলেন, মুসলিম জনগোষ্ঠী যে ভারতীয় সমাজে অনেকটাই প্রান্তিক তার সঙ্গে পারলামেন্টে তাদের প্রতিনিধিত্বের অভাবের একটা ঘনিষ্ট সম্পর্ক আছে। যদিও বেশি এমপি থাকাটা একটা সম্প্রদায়ের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় যথেষ্ট শর্ত বলে আমি মনে করি না।

রাজনীতিবীদ ও ব্যবসায়ী আবু ফারহান আজমি বলেন, এখানে এমপিদের কাজ অন্য দশজনের মতো জিতে আসা। মুসলিমদের উন্নয়ন বাজে কথা। সেকারনেই আমি মনে করি পার্লামেন্টে মুসলিমদের প্রতিনিধি না থাকলেও আমাদের দিব্বি চলে যাবে।
মোম্বাই নর্থ সেন্ট্রাল বিজেপি এমপি পুনম মহাজন বলেন, আমিতো কখনো বলি না আমি মারাঠিভাষী একজন হিন্দু এমপি। ফলে ভোটব্যাংকের রাজনীতির নামে হিন্দু মুসলিম বিভাজনের যে ধারা বহু বছর ধরে চলে এসছে দয়া করে এবার সেটা বন্ধ করুন।

মুসলিম মহিলা আন্দোলন নূরজাহান সাফিয়া নিয়াজ বলেন, মুসলিম এমপিরাই শুধু মুসলিমদের কথা বলবেন, দলিত এমপিরাই কেবল দলিতদের ইস্যুগুলো তুলে ধরবেন একরকম ধারণার সঙ্গে আমি মোটেই সহমত পোষন করি না। কিন্তু তারপরেও ভারতের মতো দেশে নানা ধর্ম এবং ভাষার যে বৈচিত্র তা পার্লামেন্টেও প্রতিফলিত হলে তাতো গণতন্ত্রের স্বাস্থ্যেরই লক্ষন।
ষোড়শ লোকসভার মেয়াদ খুব শিগগিরই শেষ হচ্ছে সেখানে মুসলিম এমপি ছিলেন মাত্র ১৬জন। যা স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে কম। সূত্র : বিবিসি বাংলা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত