প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিয়ন্ত্রনের বাইরে যাওয়ার আশঙ্কায় কী তারেক রহমান শপথের সম্মতি দিতে বাধ্য হয়েছেন, বিবিসিতে তৃণমূল

জিয়ারুল হক : বিএনপির চার নেতা সোমবার সাংসদ হিসেবে শপথ নেয়ায় দলের তৃণমূল বিস্মিত স্তম্ভিত। যেখানে বিএনপির সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনকে অর্থহীন বলেছেন সেখানে শপথ নেয়াটা ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে যাওয়ার মত। বিবিসি

মিডিয়ার মাধ্যমে দেশবাসী জেনে গেছেন তারেক রহমানের নির্দেশে বিএনপি নেতারা শপথ নিয়েছেন। এ নির্দেশেও জনগণ হতবাক। বিএনপির এমপিরা হাতছাড়া হয়ে যেতে পারেন ভেবেই কি তারেক রহমান শপথের অনুমতি দিলেন?

সোমবার রাতে বিবিসির আকবর হোসেন বিএনপির তৃণমূল নেতা নেত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

শামসুন্নাহার পান্না নামের বিএনপির এক নেত্রী বলেছেন, দলের সিদ্ধান্তে তিনি সংসদ নির্বাচনে অংশ নেননি। দলের সিদ্ধান্তে ছাড় দিয়েছি। এখন আমাদের লোকদের শপথ করতে দেখে যারপরনাই হতাশ হয়েছি। তবে সংসদে গিয়ে তারা যদি জোরালোভাবে কথা বলতে পারেন তাহলে তাদের প্রতি আস্থা ফিরে আসবে। তবে খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে শপথ নেয়া উচিত হয়নি। এখন তাকে সরকার মুক্তি দিক।

সিলেটের আরেক বিএনপি নেত্রী রুকসানা বেগম শাহনাজ বলেন, শপথ নেয়ার সিদ্ধান্তে প্রথমে রাগান্বিত ছিলাম। এখন দলের সিদ্ধান্তকে মেনে নিয়েছি।

ফেসবুকসহ যোগাযোগ মাধ্যমে বিএনপির শপথ গ্রহণ নিয়ে কী বলা হচ্ছে?

একজন বলেছেন, আসলে কথা বলার জায়গাতো সংসদ। যাক সংসদে।

আরেকজন বলেছেন, একবার বিএনপি বয়কট করলো আবার শপথ নিলো, এ কেমন কথা!

আরেকজন ফেসবুকে লিখেছেন, বিএনপি সংসদে যাক, আমাদের কথা বলুক। আমাদের কথা বলার তো সারাবিশ্বে কেউ নেই।

প্রকৃতপক্ষে তারেক রহমান শপথ নিতে সম্মতি দিতে বাধ্য হয়েছেন বলে অনেকে মনে করেন। অন্যথায় তারা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেত।

অধ্যাপিকা সায়েদা শারমিন বলেছেন, বিএনপি শপথের অনুমতি দিতে বাধ্য হয়েছে। সংসদে গেলে খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ নানা বিষয়ে তারা দরকষাকষি করতে পারবে।

বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সময়ই প্রমাণ করবে তারা সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কী না। বাস্তবতার প্রেক্ষিতে দলের নেতারা শপথ নিয়েছেন বলে তিনি জানান।

তবে মির্জা ফখরুল তার শপথসহ নানা বিষয়ে বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত