প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চাঁদপুরে ইলিশ আহরণের নামবে মেঘণা পাড়ের জেলেরা

মিজান লিটন, চাঁদপুর\  ১ এপ্রিল রাত ১২টার পর থেকে ইলিশসহ সকল মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা থাকবে না। জেলেরা নামবে ইলিশসহ অন্যান্য মাছ আহরণ করতে। তাই এখন থেকেই ৫১ হাজার ১৯০জন নিবন্ধিত জেলে পরিবারে চলছে মাছ আহরণের প্রস্তুতি। নৌকা ও জাল মেরামত এবং নতুন করে জাল তৈরী করতে মঙ্গলবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করছেন জেলেরা। সদর উপজেলার জেলে পাড়াগুলো ঘুরে এমন চিত্রই দেখাগেছে।

চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত প্রায় ৯০ কিলোমিটার এলাকায় মার্চ-এপ্রিল দুই মাস ইলিশসহ সকল ধরণের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ করেছে সরকার। এই সময় মাছ আহরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মওজুদ ও সরবরাহ আইনত দন্ডনীয়।

এ কারণে জাটকা রক্ষা কর্মসূচী বাস্তবায়নে দুই মাস পদ্মা-মেঘনা নদীতে অভিযান পরিচালনা করছেন জেলা টাস্কফোর্স। কিন্তু সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কিছু অসাধু জেলে ইলিশের পোনা জাটকা নিধনযজ্ঞে মেতে উঠেন। জনবল সংকট হওয়ার কারণে জাটকা রক্ষা কর্মসূচী শতভাগ সফল করা সম্ভব হয়নি প্রশাসনের।

মঙ্গলবার দুপুরে সদর উপজেলার মডেল ইউনিয়নের সাখুয়া গ্রামের নদী পাড় জেলে পাড়াগুলোতে গিয়ে দেখা গেছে, জেলেদের জাল ও নৌকা মেরামত করার কাজে ব্যস্ততা।

রামদাসদী গ্রামের জেলে হাসান বেপারী জানান, সরকারি নিষেধাজ্ঞার সময়ে তারা নদীতে মাছ আহরণ করেন না। সরকারে যেটুকু সহযোগিতা করেন, তা দিয়ে তাদের সংসার চলে। নিষেধাজ্ঞা শেষ হলে মাছ আহরণে নামবেন তারা। সেই জন্য জাল ও নৌকা প্রস্তুত করছেন।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুল বাকি বলেন, চাঁদপুরে জাটকা রক্ষা কর্মসূচীতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে শতভাগ চেষ্টা চালানো হয়েছে। কিছু সংখ্যক জেলেরা নিয়ম-নিতি তোয়াক্কা না করেই নদীনে মাছ আহরণ করেছে। এছাড়া তালিকাভ‚ক্ত জেলে ছাড়াও সব জেলেরা নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার সাথে সাথে নদীতে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত