প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টেকনাফে গ্রেফতারের পর ক্রসফায়ারের নামে টাকা আদায়ের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার টেকনাফে আব্দু রহিম নামের এক কৃষককে গ্রেফতারের পর ‘ক্রসফায়ারের’ ভয় দেখিয়ে দুই দফায় দেড় লক্ষ টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে বাহারছাড়া ফাঁড়ি পুলিশের বিরুদ্ধে। আটকের পর উক্ত ব্যক্তিকে টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করলে ওসি’র নাম ভাঙ্গিয়ে আরো ৫ লক্ষ টাকা দাবী করেন এএসআই হাবিবুল্লাহ হাবিব। তার দাবীকৃত টাকা না দিলে যে কোন মুহুর্তে আটক রহিমকে ক্রসফায়ার দিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ তোলেছেন ভূক্তভোগীর স্ত্রী হালিমা খাতুন। তিনি বলছেন, পুলিশের এই সব কথা কারো কাছে প্রকাশ করলে পরিবারের সদস্যদের মাদক ও অজ্ঞাত মামলায় ফাঁসিয়ে দিবে বলে হুমকি দেন পুলিশ। আটক ব্যাক্তি ওই এলাকার নুর আহাম্মদের পুত্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১৪ এপ্রিল রাত আনুমানিক ৩টার দিকে নোয়াখালীয়া পাড়া এলাকার নুর আহাম্মদের বাড়ী থেকে পুলিশ রহিমকে আটক করে নিয়ে যায়। আইন অনুযায়ী আটকের ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাকে এখতিয়ারাধীন ম্যাজিট্রেট আদালতের উপস্থিত করতে হবে। কিন্তু এএসআই হাবিবুল্লার ৫লক্ষ টাকার না দেওয়ার কারণে আটকের ১৫দিন অতিবাহিত হলেও এখনো পর্যন্ত আব্দু রহিমকে আদালত কিংবা কারাগারে প্রেরণ করেননি থানা কর্তৃপক্ষ। এ কারণে অজানা শঙ্কায় রয়েছে ভূক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয়রা। এলাকায় গুঞ্জন উঠেছে, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে ‘ক্রসফায়ারের’ ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করতে রহিমকে টেকনাফ থানা হাজতে আটকে রাখা হয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষদের জিম্মি করে হরদম টাকা আদায় করে আাসছে এএসআই হাবিবুল্লাহ।

স্থানীয়রা আরো বলেন, আব্দু রহিম পেশায় একজন কৃষক। পানের বরজ, ধান চাষসহ কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন তিনি। তার কিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টার কোন অভিযোগ নেই তবে যে অজ্ঞাত মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানার কথা জানালেন পুলিশ।
এ ব্যাপারে জানতে বাহারছাড়া ফাঁড়ির টু-আইসি এএসআই হাবিবুল্লাহর সাথে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে একাধিক বার যোযোগ করা হলেও সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, এ ব্যাপারে তিনি অবগত নন। বাহারছাড়া এলাকার মাদক ব্যবসায়ী আব্দুর রহিমকে গ্রেফতার করায় পুলিশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হতে পারে। এরপরও বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখবেন। টাকা নেয়ার প্রমাণ মিললে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত