প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাতে সিঙ্গাপুরের জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হবে সুবীর নন্দীকে

মহিব আল হাসান : সোমবার রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য এয়ার অ্যাম্বুেেন্স সিঙ্গাপরে নেওয়া হচ্ছে জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী সুবীর নন্দীকে। সিঙ্গাপুর থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স আসবে সন্ধা ৬টায়। এরপর রাত আটটায় সুবীর নন্দীকে নিয়ে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সটি সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে রওনা করবে। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চলবে তার চিকিৎসা। সেখানে তার সঙ্গে যাবেন সুবীর নন্দী সঙ্গে যাবেন মেয়ে মৌ। বিষয়টি জানিয়েছেন সুবীর নন্দীর আত্বীয় সংগীত শিল্পী তৃপ্তিকর।

বর্তমানে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. তৌফিক এলাহির তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন আছেন সুবীর নন্দী।

সুবীর নন্দীর চিকিৎসা সমন্বয়ক ও জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটের জাতীয় সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন জানান, ‘সুবীর নন্দীর শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত। তার অবস্থা ভালো না। আজকেও তাকে তাকে এক ব্যাগ রক্ত দেওয়া হয়েছে।

সামন্ত লাল সেন আরও বলেন, ‘সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। সেখানে সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণের পরই নেওয়া হচ্ছে সিঙ্গাপুরে। সিঙ্গাপুরে এই হাসপাতালেই সুবীর নন্দীর চিকিৎসা হবে। সবাই তাঁর জন্য দোয়া করেন।’
এরআগে শনিবার (২৮এপ্রিল) একুশে পদক পাওয়া দেশের বরেণ্য শিল্পীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত সিঙ্গাপুরে নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এবং সুবীর নন্দীর চিকিৎসার সব দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

চারদশকের জনপ্রিয় এই সংগীত শিল্পী দীর্ঘদিন ধরেই কিডনি ও হার্টের সমস্যাসহ নানা রোগে ভুগছিলেন। গত পয়লা এপ্রিল সিলেট থেকে ট্রেনে করে ফেরার পথে তার হার্ট অ্যাটাক হয়। শ্রীমঙ্গলে ট্রেনে করে আসার পর সেখানে একজন চিকিৎসক থাকায় তার পরামর্শে সুবীর নন্দীকে নিয়ে পরিবারের সদস্যরা ঢাকার বিমানবন্দর স্টেশনে নেমে যান।

রাত ১১টার দিকে তাকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর সেখানেও আরেক দফা অ্যাটাক হয় তার। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়। তাকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয়েছে। তিনি এখন সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

দেশের জনপ্রিয় এই সংগীতশিল্পীর ১৯৮১ সালে প্রথম একক অ্যালবাম ‘সুবীর নন্দীর গান’ প্রকাশিত হয়। ১৯৭৬ সালে ‘সূর্যগ্রহণ’ চলচ্চিত্রে প্রথম প্লে-ব্যাক করেন তিনি। দীর্ঘ ৪০ বছরের সংগীত ক্যারিয়ারে আড়াই হাজারেরও বেশি গান গেয়েছেন তিনি। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন পাঁচবার। সংগীতে অবদানের জন্য এ বছর তিনি পান দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদক।

সুবীর নন্দীর গাওয়া উল্লেখযোগ্য গানগুলো হলো—‘ও আমার উড়াল পঙ্খী রে’, ‘কেন ভালোবাসা হারিয়ে যায়’, ‘চাঁদে কলঙ্ক আছে যেমন’, ‘বধূ তোমার আমার এই যে পিরিতি’, ‘একটা ছিল সোনার কন্যা’, ‘কত যে তোমাকে বেসেছি ভালো’, ‘আমি বৃষ্টির কাছ থেকে’, ‘দিন যায় কথা থাকে’, ‘আশা ছিল মনে মনে’ ইত্যাদি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত